চাঁদা না দেয়ায় রাতভর নববধূকে ধর্ষণ করলেন ছাত্রলীগ নেতা

এক লাখ টাকা চাঁদা না দেয়ায় সিএনজিচালক স্বামীকে বেঁধে নববধূকে (২২) রাতভর ধর্ষণ করা হয়েছে বলে বরিশালের বানারীপাড়া উপজেলা ছাত্রলীগের সভাপতি সুমন হোসেন মোল্লার বিরুদ্ধে অভিযোগ পাওয়া গেছে। এ ঘটনায় রোববার ধর্ষিতার স্বামী সেলিম রায়বাসিয়া বাদী হয়ে মামলা দায়ের করেছেন।
ধর্ষিতা বানারীপাড়ার সলিয়াবাকপুরের আব্দুল রহমান রায়বাসিয়ার ছেলে সেলিমের দ্বিতীয় স্ত্রী এবং লক্ষ্মীপুর রামগতি উপজেলার পূর্ব সরসীতা গ্রামের মেয়ে। সেলিম চট্টগ্রামের পাহাড়তলী এলাকায় বসবাস করত। সেখানে সে সিএনজি চালাত। প্রেমের সম্পর্ক ১০ মাস আগে দ্বিতীয় বিয়ে করে।
সিএনজিচালক সেলিম জানান, ১৫ দিন আগে চট্টগ্রাম থেকে দ্বিতীয় স্ত্রীকে নিয়ে বানারীপাড়ায় আসি। কিন্তু প্রথম স্ত্রী কোনভাবে দ্বিতীয় স্ত্রীকে মানতে রাজি না হওয়ায় বিভিন্ন আত্মীয়স্বজনের বাড়িতে থাকি। সর্বশেষ শনিবার রাতে উপজেলার বেতাল গ্রামে নানা শামসুল হাওলাদারের বাড়িতে দ্বিতীয় স্ত্রীসহ ওঠি। খবর পেয়ে উপজেলা ছাত্রলীগের সভাপতি সুমন দলবল নিয়ে আমার কাছে এক লাখ টাকা চাঁদা দাবি করে। আর মেয়েটিকে আমি বিয়ে না করে ব্যবহারের জন্য নিয়ে এসেছে বলে জানায়। এ নিয়ে বাকবিতণ্ডার একপর্যায়ে সুমন জোরপূর্বক স্ত্রীসহ আমাকে নিয়ে ওই গ্রামের বেতাল ক্লাবের একটি কক্ষে আটকে রাখে। পরে স্ত্রীকে নিয়ে যায় আমার ফুফু আনোয়ারা বেগমের বাসায়। সেখানে গিয়েও ওই টাকা দাবি করে। দাবিকৃত টাকা না দেয়ায় আনোয়ারাকে একটি কক্ষে আটকে রেখে আমার স্ত্রীকে রাতভর ধর্ষণ করে। রোববার সকালে আমি ডাক চিৎকার করলে এলাকাবাসী আমাকে উদ্ধার করে। এরপর ফুফুর বাসায় গেলে স্ত্রী ধর্ষণের বিষয়টি অবহিত করে। ধর্ষণকালে সুমনের সঙ্গে আরো ৪ জন ছিল। তবে তারা তাকে ধর্ষণ করেনি।
বানারীপাড়া থানার ওসি সাজ্জাদ হোসেন ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে জানান, এ ঘটনায় সেলিম বাদী হয়ে সুমন ও মামুনসহ অজ্ঞাতনামাদের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করেছেন। অভিযুক্তদের গ্রেফতারে পুলিশ কাজ করছে। ধর্ষিতাকে পরীক্ষার জন্য মেডিকেলে পাঠানা হয়েছে।

মানবকণ্ঠ

print

LEAVE A REPLY