র‌্যাব পাহারায় সেই জঙ্গি আস্তানা, থমথমে পুরো এলাকা

সাভারের জঙ্গি আস্তানায় অভিযান শেষ হয়েছে গতকাল। অভিযান শেষে পুরো এলাকা ঘিরে রাখা র‌্যাবের সদস্যরাও ঘটনাস্থল ত্যাগ করেছে। তবে এখনো জঙ্গিদের ভাড়া নেওয়া ইব্রাহিমের সেই বাড়িটির সামনে র‌্যাবের একটি দল অবস্থান নিয়ে আছে। চলাচলের জন্য জনসাধারণের জন্য সড়ক উন্মুক্ত করা হলেও চৌরাপাড়া গ্রামে থমথমে পরিস্থিতি বিরাজ করছে। জঙ্গি আতঙ্কে রয়েছে এলাকাবাসী।

জাহানার বেগম নামের এক নারী বলেন, তিনি টিভিতে দেখেছেন ভয়াভহ জঙ্গি আস্তানায় অভিযানের খবর। তবে এই প্রথম নিজেই তার এলাকায় জঙ্গি অভিযানের ঘটনা দেখলেন। জঙ্গি আস্তানা থেকে ৪/৫ বাড়ি আগে তার বাসা। অভিযানের দিন রাতে হঠাৎ করে গুলির শব্দ শুনতে পান। তখনো বুঝে উঠতে পারেনি কি হচ্ছে। বাড়ি থেকে বের হয়ে দেখেন সড়কে সারি সারি র‌্যাবের গাড়ি। ছুটছেন র‌্যাব সদস্যরা।

এদিকে আব্দুল বাছেদ নামের এক ব্যাক্তি বলেন, অভিযানের সময় রাতে গুলির শব্দ পেয়েছি। তবে তখন বুঝে উঠতে পারিনি এটা কিসের শব্দ। ভোরে ঘুম থেকে উঠে বাড়ির উঠানে হাটা-চলা করছিলেন। এসময় সামনের দিকে তাকিয়ে শতাধিক র‌্যাব সদস্যদের দেখে স্তব্ধ হয়ে যান তিনি। পরে জানতে পারেন তাদের গ্রামে জঙ্গি অভিযান চলছে।

তিনি আরো বলেন, ইব্রাহিমের বাড়িতে এর আগে একটি ক্ষুদ্র কারখানা ছিল। একারণেই তাদের গ্রামের লোকজন ওই বাড়িতে যাওয়া-আসা করতো না। এছাড়াও দেড় মাস আগে যুবকরা বাড়িটি ভাড়া নেওয়ার পরও তাদেরকে তেমন একটা বাহিরে আসতেও দেখা যায়নি। তবে তাদের এলাকায় জঙ্গি অভিযানের পর গ্রামবাসীদের মধ্যে আতঙ্ক বিরাজ করছে। পুরো এলাকা নিস্তবদ্ধ ও থমথমে হয়ে গেছে বলেও জানান তিনি।

এদিকে সাভার র‌্যাব-৪ এর কোম্পানী কমান্ডার মেজর আব্দুল হাকিম বাংলাদেশ প্রতিদিনকে বলেন, জঙ্গি আস্তানায় চার জঙ্গি গ্রেফতারের ঘটনায় একটি মামলা দায়েরের প্রস্তুতি চলছে। আর এ করণে ওই বাড়িতে মামলার অনেক আলামত রয়েছে। কেউ যেন মামলার আলামত নষ্ট না করতে পারে সে জন্য বাড়িটির সামনে র‌্যাব মোতায়েন করে রাখা হয়েছে।

print

LEAVE A REPLY