বিচারবহির্ভূত হত্যাকাণ্ড-গুম-নিখোঁজ: ৬ মাসে ৪২৪০ মানবাধিকার লঙ্ঘন

দেশে প্রতিদিন গড়ে ২৩টির বেশি মানবাধিকার লঙ্ঘনের ঘটনা ঘটছে। চলতি বছরের জানুয়ারি থেকে জুন পর্যন্ত ৬ মাসে দেশে মানবাধিকার লঙ্ঘনের ঘটনা ঘটেছে ৪ হাজার ২৪০টি। জাতীয় মানবাধিকার কমিশনের (জামাকন) এক পর্যবেক্ষণে উঠে এসেছে এ চিত্র।

রাষ্ট্রীয় মানবাধিকার সংস্থাটির কর্মকর্তারা জানায়, দেশে মানবাধিকার লঙ্ঘনের ঘটনা নতুন না হলেও সম্প্রতি তা উদ্বেগজনক হারে বাড়ছে। মানুষ হত্যাকাণ্ডের শিকার হচ্ছে। খুনের শিকার হচ্ছে অবুঝ শিশুরাও।

নিখোঁজ বা গুমের শিকার হচ্ছে মানুষ। বাসা, অফিস, রাস্তা থেকে হঠাৎ করেই হাওয়া হয়ে যাচ্ছেন অনেকে। দিন বা রাতে ঘটছে এমন ঘটনা। অনেকে আবার আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর হাতে বিচারবহির্ভূত হত্যাকাণ্ডের শিকার হচ্ছেন। নারী, শিশুর ক্ষেত্রেও ঘটছে নির্যাতনের ঘটনা।
এসব বিষয়ে জাতীয় মানবাধিকার কমিশনের অভিযোগ ও তদন্ত বিভাগের পরিচালক মো. শরীফ উদ্দীন বলেন, অভিযোগ গ্রহণ ও তদন্তের পাশাপাশি জামাকন মানবাধিকার পরিস্থিতির পর্যবেক্ষণ করছে। দেশে আগেও মানবাধিকার লঙ্ঘনের ঘটনা ঘটতো। তবে এখন মানবাধিকার লঙ্ঘনের ঘটনা বাড়ছে। পর্যবেক্ষণেও মানবাধিকার লঙ্ঘনের ঘটনা আগের চেয়ে বেড়েছে।

জামাকন সূত্র জানায়, রাষ্ট্রীয় সংস্থাটির সংশ্লিষ্ট কমিটি নিয়মিত মানবাধিকার লঙ্ঘনের পরিস্থিতি পর্যবেক্ষণ করছে। নিয়মিত পরিচালিত হচ্ছে পর্যবেক্ষণ কার্যক্রম। দেশের ১২টি প্রধান দৈনিক সংবাদপত্রে প্রকাশিত মানবাধিকার লঙ্ঘন সংক্রান্ত সংবাদগুলোর আলোকে এ পর্যবেক্ষণ পরিচালিত হয়। এর মধ্যে রয়েছে ৯টি বাংলা ও ৩টি ইংরেজি দৈনিক সংবাদপত্র। সংবাদপত্রগুলোতে উল্লিখিত সংবাদের আলোকে পর্যবেক্ষণের ‘মানবাধিকার লঙ্ঘনের পরিসংখ্যান’ তৈরি হয়। পর্যবেক্ষণের আলোকে ‘মানবাধিকার লঙ্ঘনের পরিসংখ্যান ২০১৭’-এর তথ্য মতে, গত জানুয়ারি থেকে জুন পর্যন্ত ৬ মাসে চার সহস্রাধিক মানবাধিকার লঙ্ঘনের ঘটনা সংঘটিত হয়েছে। এর মধ্যে রয়েছে ৮৫৫টি হত্যাকাণ্ড। দেশের বিভিন্ন স্থানে এমন বর্বরতার শিকার হয়েছেন অনেক মানুষ। গুম বা নিখোঁজের শিকার হয়েছেন ৫২ জন। বন্দুকযুদ্ধে বিচারবহির্ভূত হত্যার শিকার হয়েছেন ৮৩ জন। নির্মমতা থেকে বাদ যাচ্ছে না শিশুরাও। হত্যার শিকার হয়েছে ১২৯ শিশু। আর নির্যাতনের শিকার হয়েছে ১২৩ শিশু। এর বাইরে শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে অমানবিক শাস্তির শিকার ১২৭ শিশু শিক্ষার্থী। নারীর উপর সহিংসতাও বেড়েছে। বছরের প্রথম ৬ মাসে ৩০৬টি ধর্ষণের ঘটনা ঘটেছে। যৌন নির্যাতন, পারিবারিক সহিংসতা, এসিড নিক্ষেপসহ আরো বিভিন্নভাবে সহিংসতার শিকার হয়েছেন আরো ২৯৯ নারী। একই সময়ে অপহরণের শিকার হয়েছেন ১৯৩ জন। অমানবিক নানা ঘটনা-দুর্ঘটনায় মৃত্যুবরণ করেছেন ৯৩ শ্রমিক।

পর্যবেক্ষণ প্রতিবেদনে মানবাধিকার লঙ্ঘনের অভিযোগ তোলা হয়েছে দেশের আইনশৃঙ্খলা রক্ষার দায়িত্বে নিয়োজিত বাহিনী পুলিশের ওপরও। পুলিশের বিরুদ্ধে দেশের বিভিন্ন স্থানে মানবাধিকার লঙ্ঘনের ১২৭টি অভিযোগ পাওয়া গেছে। পর্যবেক্ষণে সড়ক দুর্ঘটনায় প্রাণহানিকেও মানবাধিকার লঙ্ঘন বলে উল্লেখ করা হয়েছে। ৬ মাসে সড়ক দুর্ঘটনায় প্রাণ হারিয়েছেন ১ হাজার ৮৫৩ যাত্রী ও পথচারী।

মাসভিত্তিক পরিসংখ্যানে দেখা যায়, এপ্রিলে সবচেয়ে বেশি ৮৫৭টি মানবাধিকার লঙ্ঘনের ঘটনা ঘটেছে। আর সবচেয়ে কম মানবাধিকার লঙ্ঘনের ঘটনা পাওয়া যায় জানুয়ারিতে। ৩৬১টি। তবে ওই সময়ে প্রতি মাসে গড়ে ৭ শতাধিক মানবাধিকার লঙ্ঘন হয়। তখন সংঘটিত ৮৫৫টি হত্যাকাণ্ডের মধ্যে গত ফেব্রুয়ারিতে সবচেয়ে বেশি ১৮৫টি খুনের ঘটনা ঘটে। জানুয়ারিতে সবচেয়ে বেশি ৪২ শিশু নির্মম হত্যাকাণ্ডের শিকার হয়। মার্চ ও মে মাসে সর্বাধিক ৬৭টি ধর্ষণের ঘটনা ঘটে। ৫২ গুমের মধ্যে ১৪টি হয়েছিল গত মার্চে। আর ফেব্রুয়ারি ও মার্চে ২০টি করে বন্দুকযুদ্ধে নিহতের ঘটনা সংঘটিত হয়।

জাতীয় মানবাধিকার পরিস্থিতি পর্যবেক্ষণ কমিটির এক সদস্য বলেন, দেশের প্রধান জাতীয় সংবাদপত্রগুলোতে আগের দিনের একটা সার্বিক চিত্র উঠে আসে। প্রধান ১২টি দৈনিকে প্রকাশিত সংবাদের পরিপ্রেক্ষিতে মানবাধিকার লঙ্ঘনের ঘটনার আলোকে তৈরি পরিসংখ্যানের ভিত্তিতে মানবাধিকার পরিস্থিতি পর্যবেক্ষণ করা হচ্ছে। তাতে চলতি বছরের শুরুতে যে পরিসংখ্যান ও চিত্র উঠে এসেছে তা অস্বস্তিকর।

উৎসঃ মানবজমিন

print

LEAVE A REPLY