সৌদি: সড়ক দুর্ঘটনায় বাংলাদেশি যুবক নিহত

সৌদি আরবের রিয়াদে সড়ক দুর্ঘটনায় দেওয়ান নাঈম (৩১) নামের বাংলাদেশি এক যুবক নিহত হয়েছে। বৃহস্পতিবার দুপুরে দেওয়ান নাঈমের মৃত্যুর বিষয়টি নিশ্চিত করেন তার বন্ধু আসাদুল ইসলাম। নিহত নাঈম মানিকগঞ্জের সাটুরিয়া উপজেলার ধানকোড়া দেওয়ান পাড়া এলাকার মৃত. দেওয়ান আব্দুস সালামের ছেলে। নাঈম সেখানে লরি চালাতেন।

জানা যায়, পারিবারিক অসচ্ছলতার কারণে তার এক বন্ধুর (আল-মামুন) মাধ্যমে গত ছয় মাস আগে সৌদি আরবে যান দেওয়ান নাঈম। প্রথমে তিনি একটি খাবারের হোটেলে কাজ করতেন। পরে নাঈম একটি ওষুধ কোম্পানির লরি চালক হিসাবে যোগ দেন। বুধবার সৌদি আরব সময় বিকেল ৩টায় রিয়াদে সড়ক দুর্ঘটনায় গুরুতর আহত হন তিনি। পরে সেখানে একটি হাসপাতালে রাত সাড়ে ৯টার দিকে তার মৃত্যু হয়।

দেওয়ান নাঈমের সৌদি আরবের সহপাঠী ওয়াসিম জানান, নাঈম বুধবার বিকেল ৩টার দিকে রিয়াদে সড়ক দুর্ঘটনায় আহত হন। পরে হাসপাতালে নেওয়ার পর চিকিৎসাধীন অবস্থায় তার মৃত হয়। নাঈমের লাশ এখন পর্যন্ত রিয়াদের একটি হাসপাতালে রয়েছে। এ বিষয়ে নাঈমের বন্ধু লাল মিয়া জানান, নাঈমের বাড়িতে এখন শোকের মাতম চলছে। তার একটি ছেলে সন্তান রয়েছে। একমাত্র ছেলের মরদেহের অপেক্ষায় এখন প্রহর গুনছেন নাঈমের পরিবার।

এর আগে গত ৬ জানুয়ারি সৌদি আরবের পশ্চিমাঞ্চলে জিজান প্রদেশে এক সড়ক দুর্ঘটনায় ১০ বাংলাদেশি শ্রমিক নিহত হয়েছেন। সৌদি আরবস্থ বাংলাদেশ দূতাবাস থেকে প্রেরিত এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ কথা জানানো হয়।
বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, জেদ্দা থেকে ৮শ’ কিলোমিটার দূরে ইয়েমেন সীমান্তের কাছে অবস্থিত জিজান প্রদেশে স্থানীয় সময় শনিবার সকাল ৭টার দিকে একটি ট্রাকে করে ২০ জন বাংলাদেশি শ্রমিক কর্মস্থলে যাওার পথে পেছন থেকে আরেকটি গাড়ি ধাক্কা দিলে এ দুর্ঘটনা ঘটে।

দূতাবাস সূত্রে জানা যায়, দুর্ঘটনার পরপর ঘটনাস্থলে ৮ জন মারা গেছে, গুরুতর আহত অবস্থায় হাসপাতালে নেয়ার পর আরো দু’জন বাংলাদেশি মারা যায়। দুর্ঘটনাস্থল পরিদর্শনের জন্য জেদ্দা কনস্যুলেট থেকে তাৎক্ষণিকভাবে কর্মকর্তা প্রেরণ করা হয়েছে। দুর্ঘটনায় নিহত বাংলাদেশি শ্রমিকদের পরিচয় এখনো নিশ্চিত হওয় সম্ভব হয়নি বলে জেদ্দা কনস্যুলেট সূত্র জানায়। নিহতদের পরিচয় পাওয়া গেলে পরবর্তীতে জানিয়ে দেয়া হবে।

print

LEAVE A REPLY