ভোট সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ হলো কিনা, তা নিয়ে ইসি’র ‘মাথাব্যথা’ নেই: টিআইবি

0

স্বাধীনতার পঞ্চাশ বছরে এসে গণতান্ত্রিক যাত্রায় বাংলাদেশের অবস্থান মূল্যয়নে একেবারেই স্বস্তিকর কোনো পর্যায়ে যাওয়া যায়নি বলে মন্তব্য করেছেন ট্রান্সপারেন্সি ইন্টারন্যাশনাল বাংলাদেশের (টিআইবি) নির্বাহী পরিচালক ড. ইফতেখারুজ্জামান।

আগামীকাল, ১৫ সেপ্টেম্বর ‘আন্তর্জাতিক গণতন্ত্র দিবস’ উপলক্ষে গণমাধ্যমে পাঠানো এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে টিআইবির নির্বাহী পরিচালক ড. ইফতেখারুজ্জামান বলেন, ‘অতিসম্প্রতি প্রকাশিত বৈশ্বিক গণতন্ত্র সূচকে চার ধাপ এগিয়ে বাংলাদেশের ৭৬তম অবস্থান সাময়িক স্বস্তিদায়ক হলেও দীর্ঘমেয়াদে তা আশাব্যঞ্জক নয়। কারণ ৫ দশমিক ৯৯ স্কোর নিয়ে আমরা এখনও ‘হাইব্রিড রিজিমে’ অবস্থান করছি, যাকে পূর্ণাঙ্গ গণতান্ত্রিক ব্যবস্থা বলা যাবে না। দেশের রাজনৈতিক কাঠামোয় গণতান্ত্রিক চর্চার পরিপূর্ণ বিকাশ ঘটেনি বলেই শুধু বাংলাদেশের এই স্কোর নয়, বরং আমাদের শক্তিশালী বেশ কিছু আইনি কাঠামো থাকলেও সেগুলো পূর্ণ বাস্তবায়ন না হওয়া এবং “আপাত ভোটের মাধ্যমে ক্ষমতা পরিবর্তন” হয় বলে প্রচার থাকলেও বাস্তবে নির্বাচন কমিশনসহ সংশ্লিষ্ট প্রতিষ্ঠানসমূহের কাঠামোগত ও আদর্শিক দুর্বলতায় সূচকে আমাদের এই অবস্থান। “দেশে নির্বাচন কেন্দ্রিক এক দিনের গণতন্ত্রও বিলীন হতে চলেছে” বলে সংসদে সম্প্রতি যে আলোচনা হয়েছে, সেটিও দেশের নির্বাচনী ব্যবস্থার দুর্বলতাকে যথার্থভাবেই ফুটিয়ে তুলে, যা কোনোভাবেই কাম্য ছিল না।’

‘জাতীয় শুদ্ধাচার কৌশল বাস্তবায়নের গুরুত্বপূর্ণ অংশীদার হিসেবে নির্বাচন কমিশন শক্তিশালী ভূমিকা পালনে ব্যর্থ হয়েছে’ মন্তব্য করে টিআইবির নির্বাহী পরিচালক বলেন, ‘একটি দেশের গণতান্ত্রিক ব্যবস্থা কতটা শক্তিশালী তা নির্ভর করে দেশটির নির্বাচন ব্যবস্থা এবং সংসদীয় কার্যাবলীর মধ্য দিয়ে। কিন্তু বিগত অনেকগুলো বছর ধরেই আমাদের নির্বাচন কমিশন কেমন যেন রুটিন দায়িত্বের অংশ হিসেবে শুধু ভোটের আয়োজনেই সন্তুষ্ট, অংশগ্রহণমূলক, সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ ভোট হলো কিনা, তা নিয়ে তাদের ‘মাথাব্যথা’ নেই। গণতান্ত্রিক উৎকর্ষ অর্জনে শক্তিশালী নির্বাচন কমিশন এবং নির্বাচন কাঠামোর আমূল সংস্কার আশু কর্তব্য।’

‘টেকসই উন্নয়ন লক্ষ্যমাত্রা (এসডিজি) অর্জনেও গণতান্ত্রিক উৎকর্ষ সাধনের বিকল্প নেই’ উল্লেখ করে ড. ইফতেখারুজ্জামান বলেন, ‘আমরা চলতি দশকেই এসডিজি অর্জনে প্রতিশ্রুতিবদ্ধ, অথচ এসডিজির অন্যতম অভীষ্ট (১৬) শান্তি, ন্যায়বিচার ও শক্তিশালী প্রতিষ্ঠান নিশ্চিতে কিছু আইনি সংস্কার ব্যতীত জনগণের অংশগ্রহণমূলক ও কার্যকর কোনো দৃশ্যমান উদ্যোগ নেই। এখনও দেশের রাজনৈতিক ও প্রাতিষ্ঠানিক শুদ্ধাচারই নিশ্চিত করা যায়নি। সবার জন্য সমান আইনি সুযোগ অর্জিত হয়নি। অংশগ্রহণমূলক সামাজিক ও আইনি কাঠামো গঠনে এখনও বহু পথ বাকি। গণতান্ত্রিক উৎকর্ষ সাধনে প্রতিবন্ধক নানা আইন ও নীতি-কাঠামোর মাধ্যমে এখনও ভয়হীন, মুক্ত ও স্বাধীন মতপ্রকাশের অধিকার সংকুচিত করা হচ্ছে। ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনসহ বিভিন্ন নিবর্তনমূলক আইনের মাধ্যমে গণমাধ্যম ও জনগণের সমালোচনা এবং রাষ্ট্রীয় স্বেচ্ছাচারিতার বিরুদ্ধে অবাধে কথা বলার অধিকার বাধাগ্রস্ত করা হচ্ছে, যা সব ক্ষেত্রে শুদ্ধাচার নিশ্চিত করতে নেতিবাচক ভূমিকা রাখছে। অবিলম্বে এসব বাধা অপসারণ করে জনগণের পূর্ণাঙ্গ গণতান্ত্রিক অধিকার প্রদানে সব ক্ষেত্রে রাজনৈতিক ও প্রাতিষ্ঠানিক শুদ্ধাচার নিশ্চিত করতে হবে, যা জাতীয় শুদ্ধাচার কৌশলের রূপকল্প ‘সুখী-সমৃদ্ধ সোনার বাংলা গঠন’ এবং অভিলক্ষ ‘রাষ্ট্রীয় প্রতিষ্ঠান ও সমাজে সুশাসন প্রতিষ্ঠা’র সঙ্গে সামঞ্জস্যপূর্ণ, পাশাপাশি ক্ষমতাসীন রাজনৈতিক দলের নির্বাচনী অঙ্গীকারও বটে!’

শীর্ষনিউজ

Comments
Loading...