হিন্দুদের উপর হামলা হলেই একটা পক্ষ চোখ বুজে হুজুরদেরকে দেখেন, সাম্প্রদায়িক হামলা বলে চিল্লান!

0 ১৭০

মোঃ ইলিয়াস

#হিন্দুদের_উপর_হামলা হলেই একটা পক্ষ চোখ বুজে হুজুরদেরকে দেখেন… #সাম্প্রদায়িক হামলা বলে চিল্লান

অথচ এ পর্যন্ত এমন যতগুলো ঘটনা ঘটেছে দিন শেষে প্রমাণ হয়েছে হয় নিজেরা করেছেন পাশের অন্যকাউকে ফাঁসাতে অথবা প্রতিবেশির সাথে দীর্ঘদিনের ক্যাচাল ছিল সেই ক্ষোভ মিটিয়েছেন অথবা রাজনৈতিক নেতাদের জিঘাংসার ফল!

গতকাল কয়েকটি পত্রিকায় সুনামগঞ্জের শাল্লায় হিন্দু বাড়িতে হামলার আসল ঘটনা বের হতেই সেই তথাকথিত বুদ্ধিজীবীদের কলম থেমে গেছে। তাদের ওয়াল ঘুরে এখন আর প্রতিবাদি পোস্ট নাই সব পুতুপুতু লেখা ।

এরা জ্ঞানপাপী। এরা সত্য লুকানোর দল। এরা দূর্বলের উপর সবলে হামলারীদের অভয়ারণ্যে উৎসাহী। এরা দেশে “যা কিছু ঘটুক কেষ্ট বেটাই চোর” টাইপের কাজী। কিন্তু যখন সত্য বের হয় তখন এদের আসল পাজী চেহারাটা বের হয়ে আসে।

অনেকেই লেখালেখি করেছে ছবি থাকলেও কেন তাদের গ্রেফতার করা হচ্ছে না! দেখুন কাকে গ্রেফতার করবে দলকানা প্রশাসন যখন দেখে “#শর্ষের_মধ্যে_ভুত” তখন তারাও লেজ গুটায়। এটা হচ্ছে বাস্তবতা।

হামলার ঘটনা নিয়ে হিন্দুদের পক্ষ থেকে চেয়ারম্যন বিবেকানন্দ মজুমদার ২২ জনের নাম উল্লেক করে মামলা করেছেন স্থানীয় যুবলীগ নেতা এবং শাল্লার স্বাধীন মেম্বার এবং যুবলীগ নেতা পক্কন সেই আসামীদের মধ্যে প্রধান। এদের সাথে দীর্ঘদিন ধরেই জলমহালের পানি, মাছ ধরো নিয়ে বিরোধ ছিল।

আগের দিনের হেফাজত সমর্থকদের মিছিল হয়েছিল একজন হিন্দু যুবকের ফেসবুকে অশ্লীল ভাষায় মামুনুল হককে গালি দেয়ায়। যুবলীগের এই নেতারা সেই সুযোগ কাজে লাগিয়েছেন। তারা পরের দিন দলবলে হামলা করে পুরোনো ক্ষোভ মিটিয়েছেন। সময়টা এমন সময় যাতে দায়টা আগের দিনের মিছিলকারীদের ঘারে গিয়ে চাপে।

একই রকম কৌশল এর আগে এরা কুমিল্লায় করেছেন, বিবাড়িয়য়া হয়েছে, রামু কিংবা রাজশাহীতেও।

হামলা যারাই করুক তারা কেউ দূর থেকে আসেনা। যাদের উপর হামলা হয় তারাও দুষ্কৃতকারীদেরকে চিনেন। কিন্তু অনেক সময় এরা বলতে পারেননা ভয়ে অথবা যাদেরকে ভোট দেন যাদেরকে অভিভাবক মনে করেন তারা কিভাবে তাদের উপর হামলা করেন সেটা ভেবে পাননা।

গতকাল এক হিন্দু বন্ধুর সাথে এসব বিষয় নিয়ে কথা হচ্ছিল, সে খুব আপসুস করে বলতে ছিল এদেশে আর থাকা যাবে না। ওপারে চলে যাবেন এমন।

তাঁকে বললাম তোমরা এ দেশে থাকলে তারা তোমাদের ভোট পায় ওপারে চলে গেলে তোমাদের জমি পায়। সুতরাং ভোটের থেকে জমির কদর তাদের কাছে অনেক বেশি।

মাজাকোমর শক্ত করো। যাদের হাতে নিজেদেরকে সোপর্দ করেছো তাদের কোন কর্মকাণ্ডই পক্ষে ছিল না কোনদিন। সুতরাং দেশকে নিজের দেশ মনে করে অধিকার আদায় করতে শেখো। এদেরকে খেলতে দিওনা আর।

দাদা সাব আম্মেদকার বলেছেন, অধিকার চেয়ে পাওয়া যায় না, অধিকার আদায় করে নিতে হয়।

সাংবাদিক ও ব্লগার

শাহবাগ

#ইলিয়াস৮১৭_সাম্প্রদায়িক_মন্দিরভাঙ্গচুর

Comments
Loading...