TheBarta.com https://thebarta.com সংবাদ সারাবেলা Sat, 04 Dec 2021 22:10:43 +0000 en-US hourly 1 https://wordpress.org/?v=5.8.2 https://thebarta.com/wp-content/uploads/2020/10/cropped-Logo-Thebarta-300x89-1-32x32.png TheBarta.com https://thebarta.com 32 32 খেলাপি ঋণসহ ১০ তথ্য চেয়েছে আইএমএফ https://thebarta.com/economics/%e0%a6%96%e0%a7%87%e0%a6%b2%e0%a6%be%e0%a6%aa%e0%a6%bf-%e0%a6%8b%e0%a6%a3%e0%a6%b8%e0%a6%b9-%e0%a7%a7%e0%a7%a6-%e0%a6%a4%e0%a6%a5%e0%a7%8d%e0%a6%af-%e0%a6%9a%e0%a7%87%e0%a7%9f%e0%a7%87%e0%a6%9b/ https://thebarta.com/economics/%e0%a6%96%e0%a7%87%e0%a6%b2%e0%a6%be%e0%a6%aa%e0%a6%bf-%e0%a6%8b%e0%a6%a3%e0%a6%b8%e0%a6%b9-%e0%a7%a7%e0%a7%a6-%e0%a6%a4%e0%a6%a5%e0%a7%8d%e0%a6%af-%e0%a6%9a%e0%a7%87%e0%a7%9f%e0%a7%87%e0%a6%9b/#respond Sat, 04 Dec 2021 22:10:43 +0000 https://thebarta.com/?p=140234

কোভিড-১৯ পরবর্তী খেলাপি ঋণ ও ঋণ অবলোপনসহ রাষ্ট্রায়ত্ত সব ব্যাংকের ১০ ধরনের তথ্য জানতে চেয়েছে আন্তর্জাতিক মুদ্রা তহবিল (ইন্টারন্যাশনাল মনিটারি ফান্ড বা আইএমএফ)। অন্য তথ্যগুলো হচ্ছে-সম্পদের ঝুঁকি, মূলধন ঘাটতি, পরিচালনা বোর্ড, আইনি সংস্কার ও বিশেষ নিরীক্ষা অগ্রগতি। এছাড়া আছে ব্যাংকের পারফরম্যান্স চুক্তি, অন্যান্য ব্যাংকের সংস্কার, অ্যাসেস ম্যানেজমেন্ট কোম্পানি (এএমসি) গঠন প্রক্রিয়ার সর্বশেষ অবস্থা। সম্প্রতি অর্থ […]

The post খেলাপি ঋণসহ ১০ তথ্য চেয়েছে আইএমএফ appeared first on TheBarta.com.

]]>

কোভিড-১৯ পরবর্তী খেলাপি ঋণ ও ঋণ অবলোপনসহ রাষ্ট্রায়ত্ত সব ব্যাংকের ১০ ধরনের তথ্য জানতে চেয়েছে আন্তর্জাতিক মুদ্রা তহবিল (ইন্টারন্যাশনাল মনিটারি ফান্ড বা আইএমএফ)। অন্য তথ্যগুলো হচ্ছে-সম্পদের ঝুঁকি, মূলধন ঘাটতি, পরিচালনা বোর্ড, আইনি সংস্কার ও বিশেষ নিরীক্ষা অগ্রগতি। এছাড়া আছে ব্যাংকের পারফরম্যান্স চুক্তি, অন্যান্য ব্যাংকের সংস্কার, অ্যাসেস ম্যানেজমেন্ট কোম্পানি (এএমসি) গঠন প্রক্রিয়ার সর্বশেষ অবস্থা।

সম্প্রতি অর্থ মন্ত্রণালয়ের আর্থিক প্রতিষ্ঠান বিভাগের সচিব এসএম সলিম-উল্লাহকে এসব তথ্য চেয়ে চিঠি দিয়েছে আইএমএফের বাংলাদেশের আবাসিক প্রতিনিধি জয়েন্দু দে। সংশ্লিষ্ট সূত্রে পাওয়া গেছে এসব তথ্য।

আর্থিক প্রতিষ্ঠান বিভাগ সূত্রে জানা গেছে, আজ ১০ দিনের সফরে আইএমএফের একটি প্রতিনিধি দল ঢাকায় আসছে। আইএমএফের ইনস্টিটিউট ফর ক্যাপাসিটি ডেভেলপমেন্টের পরিচালকের সহকারী রাহুল আনন্দের নেতৃত্বাধীন এ দলটি ১৫ ডিসেম্বর পর্যন্ত ঢাকায় অবস্থান করবেন। এ সময় আর্থিক প্রতিষ্ঠান বিভাগ (এফআইডি), অর্থ মন্ত্রণালয়, জাতীয় রাজস্ব বোর্ড (এনবিআর), বাংলাদেশ ব্যাংকসহ সংশ্লিষ্ট বিভাগ ও সংস্থার ঊর্ধ্বতন কর্তকর্তাদের সঙ্গে বৈঠক করবেন। এ ছাড়া ব্যবসায়ীদের সবচেয়ে বড় সংগঠন এফবিসিসিআইয়ের সঙ্গেও বৈঠক করবেন তারা। এরমধ্যে আর্থিক প্রতিষ্ঠান বিভাগের সঙ্গে দেশের ব্যাংকিং খাতের পরিস্থিতি নিয়ে বৈঠক হবে। ওই বৈঠককে সামনে রেখে উল্লিখিত ব্যাংকিং খাতের তথ্য জানতে চাওয়া হয়েছে আইএমএফ থেকে। জানতে চাইলে সাবেক সিনিয়র অর্থসচিব মাহবুব আহমেদ যুগান্তরকে জানান. আর্টিক্যাল ফোর এর আওতায় আইএমএফ দেশের অর্থনীতি খাতে কিছু সংস্কারের বিষয় জানতে চায়। ব্যাংকিং খাতে খেলাপি ঋণ, ঋণ অবলোপন ও বোর্ড পরিচালনার অবস্থা সম্পর্কে সবই বলা হচ্ছে। কোনো কিছু বাদ যাচ্ছে না। তারা এসব তথ্য বিশ্লেষণ করে কিছু সংস্কারের প্রস্তাবও দিয়ে থাকে। এতে এক ধরনের পেশার সৃষ্টি হয়। ফলে তাদের শর্ত বা চাহিদা পূরণ করতে গিয়ে কিছু সংস্কার কার্যক্রম বাস্তবায়ন হয়।

দেশের খেলাপি ঋণের হিসাব নিয়ে দ্বিমত রয়েছে আইএমএফের। যদিও বাংলাদেশ ব্যাংকের সর্বশেষ হিসাবে সেপ্টেম্বর শেষে খেলাপি ঋণ বেড়ে ১ লাখ ১৬৮ কোটি টাকায় উঠেছে। এরমধ্যে রাষ্ট্র মালিকানাধীন ছয় ব্যাংকে ৪৪ হাজার ১৬ কোটি টাকা। আন্তর্জাতিক মুদ্রা তহবিল (আইএমএফ) ২০১৯ সালের মাঝামাঝি বাংলাদেশের ব্যাংক খাত নিয়ে একটি রিপোর্টে বলেছিল, এ দেশে খেলাপি ঋণ আড়াল করে রাখা আছে। এখানে খেলাপি ঋণের যে তথ্য প্রকাশ করা হয়, প্রকৃত খেলাপি ঋণ তার তুলনায় অনেক বেশি। আইএমএফের মতো, বাংলাদেশে খেলাপি ঋণের অঙ্ক হবে প্রায় আড়াই লাখ কোটি টাকা। এ নিয়ে অর্থ মন্ত্রণালয়ের সঙ্গে বৈঠকে বিষয়টি উঠে আসবে।

যেসব আইন খেলাপি ঋণ পরিস্থিতি উন্নয়নে কাজ করবে, সেগুলোর সংশোধনের সর্বশেষ অবস্থা জানতে চাওয়া হয়েছে আইএমএফের চিঠিতে। সূত্র জানায়, এরই মধ্যে ৫টি সংশ্লিষ্ট আইন পর্যালোচনা ও পরিমার্জন করে খসড়া বিল আকারে অর্থ মন্ত্রণালয়ে পাঠিয়েছে এ সংক্রান্ত সুপারিশ কমিটি। আইনগুলো হচ্ছে-ব্যাংক কোম্পানি আইন-১৯৯১, অর্থঋণ আদালত আইন-২০০৩, প্রস্তাবিত ফাইন্যান্স কোম্পানি আইন-২০২১, নেগোশিয়েবল ইন্সট্র–মেন্ট অ্যাক্ট-১৮৮১ ও দেউলিয়া বিষয়ক আইন-১৯৯৭। ব্যাংকিং খাতে খেলাপি ঋণ পরিস্থিতি উন্নয়নে বাংলাদেশ ব্যাংকের একজন ডেপুটি গভর্নরের নেতৃত্ব ১০ সদস্যের একটি সুপারিশ কমিটি গঠন করা হয়। ওই কমিটি আইনগুলো সংশোধন করে খসড়া বিল আকারে অর্থ মন্ত্রণালয়ে পাঠিয়েছে।

আইএমএফ ব্যাংকিং খাতে ঋণের অবলোপনের পরিসংখ্যান, কিভাবে বর্তমান খেলাপি ঋণ অবলোপন করা হয় এবং আগামীতে এ পদ্ধতি পরিবর্তনের সম্ভাবনা আছে কিনা-তাও জানাতে বলছে। বাংলাদেশ ব্যাংকের সর্বশেষ তথ্যমতে, ব্যাংকিং খাতে ২০২১ সালের জুন পর্যন্ত ঋণ অবলোপন করা হয়েছে ৪৩ হাজার ৫৪৩ কোটি টাকা। এরমধ্যে ৬টি রাষ্ট্রায়ত্ত বাণিজ্যিক ব্যাংকের পরিমাণ হচ্ছে ১৭ হাজার ৪২৮ কোটি টাকা।

সংস্থাটি রাষ্ট্রায়ত্ত বাণিজ্যিক ব্যাংকের পরিচালনা পর্ষদ বা বোর্ড পরিচালনার অভিজ্ঞতা, সমস্যা ও সমাধান নিয়েও আলোচনা করবে। কারণ ইতঃপূর্বে সরকারি ব্যাংকগুলোর বোর্ড এমন কয়েকজনকে বসানো হয়েছে, যাদের ব্যাংকিং খাতের কোনো অভিজ্ঞতা ছিল না। রাজনৈতিক পরিচয়ে তাদের সেখানে বসানো হয়। এর বড় উদাহরণ বেসিক ব্যাংক। এ জন্য ব্যাংকের বোর্ড নিয়েও তারা জানতে চেয়েছে। সূত্র জানা গেছে, খেলাপি ও ননপারফরমিং ঋণ আদায়ে অ্যাসেস ম্যানেজমেন্ট কোম্পানি গঠনের জন্য ‘বাংলাদেশ অ্যাসেট ম্যানেজমেন্ট আইন-২০২০’ এর খসড়া প্রণয়ন করেছে অর্থ মন্ত্রণালয়। খসড়া চূড়ান্ত করতে মত চাওয়া হয়েছে স্টেক হোল্ডারদের কাছে। খসড়াতে বলা হয়েছে এ কোম্পানি নিজস্ব ক্ষমতা বলে খেলাপি প্রতিষ্ঠানের সম্পত্তি লিজ গ্রহণ ও বিক্রি করে অর্থ আদায় করতে পারবে। পাশাপাশি খেলাপির রুগ্ণ ব্যবসা দক্ষভাবে পরিচালনার জন্য ব্যবস্থাপনার দায়িত্ব নেবে। প্রয়োজনে অর্থ আদায়ের জন্য দখলে নিতে পারবে ঋণের বিপরীতে দেওয়া জামানতের সম্পত্তি। এছাড়া ক্রয়কৃত ঋণের গুণগতমান বিবেচনায় নিয়ে তা পুরোপুরি বা আংশিক শেয়ারে রূপান্তরের ক্ষমতা থাকবে এ কোম্পানির।

কোম্পানি হবে শতভাগ সরকারি, বিশেষায়িত প্রতিষ্ঠানের অনুমোদিত মূলধন হবে ৫ হাজার কোটি টাকা। প্রতিটি ১০ টাকা মূল্যের ৫০০ কোটি সাধারণ শেয়ারে ভাগ করা হবে। আর পরিশোধিত মূলধনের পরিমাণ হবে ৩ হাজার কোটি টাকা। এ অর্থ সরকার থেকে বরাদ্দ দেওয়া হবে। কিন্তু এখনো গঠন হয়নি। এটি নিয়েও কথা বলবে সংস্থাটি।

jugantor

The post খেলাপি ঋণসহ ১০ তথ্য চেয়েছে আইএমএফ appeared first on TheBarta.com.

]]>
https://thebarta.com/economics/%e0%a6%96%e0%a7%87%e0%a6%b2%e0%a6%be%e0%a6%aa%e0%a6%bf-%e0%a6%8b%e0%a6%a3%e0%a6%b8%e0%a6%b9-%e0%a7%a7%e0%a7%a6-%e0%a6%a4%e0%a6%a5%e0%a7%8d%e0%a6%af-%e0%a6%9a%e0%a7%87%e0%a7%9f%e0%a7%87%e0%a6%9b/feed/ 0
ভোটে কারচুপির প্রমাণ নথিপত্রে https://thebarta.com/politics/%e0%a6%ad%e0%a7%8b%e0%a6%9f%e0%a7%87-%e0%a6%95%e0%a6%be%e0%a6%b0%e0%a6%9a%e0%a7%81%e0%a6%aa%e0%a6%bf%e0%a6%b0-%e0%a6%aa%e0%a7%8d%e0%a6%b0%e0%a6%ae%e0%a6%be%e0%a6%a3-%e0%a6%a8%e0%a6%a5%e0%a6%bf/ https://thebarta.com/politics/%e0%a6%ad%e0%a7%8b%e0%a6%9f%e0%a7%87-%e0%a6%95%e0%a6%be%e0%a6%b0%e0%a6%9a%e0%a7%81%e0%a6%aa%e0%a6%bf%e0%a6%b0-%e0%a6%aa%e0%a7%8d%e0%a6%b0%e0%a6%ae%e0%a6%be%e0%a6%a3-%e0%a6%a8%e0%a6%a5%e0%a6%bf/#respond Sat, 04 Dec 2021 22:06:24 +0000 https://thebarta.com/?p=140231

ময়মনসিংহের ত্রিশালে গত ২৮ নভেম্বর অনুষ্ঠিত ইউনিয়ন পরিষদ (ইউপি) নির্বাচনে মোট প্রদত্ত ভোটের সঙ্গে প্রার্থীদের পাওয়া ভোটের সংখ্যার গরমিল পাওয়া গেছে। চেয়ারম্যান, সংরক্ষিত নারী সদস্য ও সাধারণ সদস্য পদে মোট প্রদত্ত ভোটের সংখ্যা সমান হওয়ার কথা। কিন্তু মোট ১২টি কেন্দ্রের মধ্যে চারটির ফলাফলে দেখা গেছে, তিন পদে ভোটের সংখ্যা তিন রকম। এই চার কেন্দ্রে নৌকার […]

The post ভোটে কারচুপির প্রমাণ নথিপত্রে appeared first on TheBarta.com.

]]>

ময়মনসিংহের ত্রিশালে গত ২৮ নভেম্বর অনুষ্ঠিত ইউনিয়ন পরিষদ (ইউপি) নির্বাচনে মোট প্রদত্ত ভোটের সঙ্গে প্রার্থীদের পাওয়া ভোটের সংখ্যার গরমিল পাওয়া গেছে। চেয়ারম্যান, সংরক্ষিত নারী সদস্য ও সাধারণ সদস্য পদে মোট প্রদত্ত ভোটের সংখ্যা সমান হওয়ার কথা। কিন্তু মোট ১২টি কেন্দ্রের মধ্যে চারটির ফলাফলে দেখা গেছে, তিন পদে ভোটের সংখ্যা তিন রকম। এই চার কেন্দ্রে নৌকার প্রার্থী বিপুল ব্যবধানে জয়ী হয়েছেন। বাকি আট কেন্দ্রে তিনি হেরেছেন। সেগুলোতে তিন পদে মোট প্রদত্ত ভোটের সংখ্যায় হেরফের হয়নি।

নির্বাচন-সংশ্নিষ্টরা বলেছেন, বেপরোয়া কারচুপির কারণে এমনটি হয়েছে। সারাদেশে অনেক ইউনিয়নে অনিয়মের অভিযোগ উঠলেও ত্রিশালের মতো এমন প্রমাণ রেখে কারচুপি হয়নি। ভয়ডরহীন অনিয়মের কারণে ভোটের সংখ্যায় গরমিল রেখেই ফল প্রকাশ করা হয়েছে।

সমকালের করা ফল বিশ্নেষণ দেখা গেছে, সংরক্ষিত নারী সদস্য পদের চেয়ে চেয়ারম্যান পদে ৭৩২ ভোট বেশি পড়েছে। আর সাধারণ সদস্য (মেম্বার) পদের চেয়ে ভোট বেশি পড়েছে ৭৯০টি। এমনকি চেয়ারম্যান পদে বিজয়ী প্রার্থী একটি কেন্দ্রে প্রায় ৯৯ শতাংশ ভোট পেয়েছেন। ৯৬ দশমিক ৫ শতাংশ ভোট পেয়েছেন আরেক কেন্দ্রে।

ত্রিশাল ইউনিয়নে চেয়ারম্যান পদে আওয়ামী লীগের প্রার্থী জাকির হোসাইন নৌকা প্রতীকে ছয় হাজার ৯৭৭ ভোট পেয়ে বেসরকারিভাবে নির্বাচিত হয়েছেন। রিটার্নিং কর্মকর্তার সই করা ফলাফল অনুযায়ী, নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী উপজেলা যুবদলের সাবেক সভাপতি স্বতন্ত্র প্রার্থী মো. শাহজাহান। তিনি আনারস প্রতীকে ছয় হাজার ৯০৩ ভোট পেয়েছেন। চেয়ারম্যান পদের আরও তিনজন স্বতন্ত্র প্রার্থী ছিলেন। তাদের মধ্যে মুহাম্মদ আনোয়ার সাদত জাহাঙ্গীর অটোরিকশা প্রতীকে পান চার হাজার ৩০৩ ভোট এবং সাইদুর রহমান সবুজ চশমা প্রতীকে পান দুই হাজার ২১১ ভোট।

পরাজিত প্রার্থীরা নির্বাচনে ব্যাপক কারচুপির অভিযোগ তুলেছেন। এর মধ্যে সাইদুর রহমান সবুজ রিটার্নিং কর্মকর্তার কাছে ফল বাতিল চেয়ে পুনর্নির্বাচনের আবেদন করেছেন।

তবে রিটার্নিং কর্মকর্তা মোহাম্মদ ফারুক মিয়ার দাবি, ‘খুবই সুষ্ঠু ভোট হয়েছে।’ চেয়ারম্যান ও মেম্বার পদে ভোটের সংখ্যায় কীভাবে গরমিল হলো- এ প্রশ্নে তিনি সমকালকে বলেন, ‘কোনো কোনো ভোটার হয়তো ব্যালট বাক্সে না ফেলে বাড়ি নিয়ে গেছে।’

এ বিষয়ে জানতে চাইলে সুশাসনের জন্য নাগরিক (সুজন) সম্পাদক ড. বদিউল আলম মজুমদার বলেন, অস্বাভাবিক ভোট হয়েছে। দু-চারটি ব্যালট হারাতে পারে। কিন্তু ৭০০-৮০০ ব্যালট কমবেশি হওয়া অসম্ভব। কারচুপি হলে এমনটি হতে পারে।

ত্রিশাল ইউনিয়নে ভোটার সংখ্যা ২৭ হাজার ৬১৮। রিটার্নিং কর্মকর্তার স্বাক্ষরিত ফলাফল অনুযায়ী, চেয়ারম্যান পদে বৈধ ও অবৈধ মিলিয়ে প্রদত্ত ভোটের সংখ্যা ২১ হাজার ৩২৯। কিন্তু মহিলা মেম্বার পদে ২০ হাজার ৫৯৭ এবং মেম্বার পদে ২০ হাজার ৫৩৯।

স্বতন্ত্র প্রার্থী আনোয়ার সাদত জাহাঙ্গীরের ভাষ্য, নৌকার প্রার্থী আগের রাতে ব্যালটে সিল মেরে বাক্সে ভরেছে। তার পরও নৌকা হারত। প্রকাশ্যে নৌকায় ভোট দিতে বাধ্য করা হয়েছে ভোটারদের। একটি কেন্দ্রে বিকেল ৪টার পর কয়েকশ ব্যালট কেটে বাক্সে ঢোকানো হয়েছে। এ কারণে চেয়ারম্যান পদে ভোট বেশি পড়েছে। সারাদিন রিটার্নিং ও প্রিসাইডিং কর্মকর্তার কাছে অভিযোগ করেও কোনো লাভ হয়নি।

আরেক প্রার্থী সাইদুর রহমান সবুজ বলেন, একজন ভোটারকে তিনটি পদের জন্য তিনটি পৃথক ব্যালেট দেওয়া হয়। ব্যালট না নেওয়ার সুযোগ নেই। ভোটার গোপন কক্ষে ভোট দিয়ে ব্যালট নির্ধারিত বাক্সে ফেলেন। ফলে তিন পদে ভোট সংখ্যা অবশ্যই সমান হবে। যদি কোনো পদের ব্যালট হারিয়ে যায়, তাহলে তা ফলাফলে উল্লেখ থাকবে। কিন্তু ফলাফলের কাগজে তা উল্লেখ নেই।

সাইদুর রহমানের আরও অভিযোগ, কারচুপির বিষয়ে দিনভর ভোট কর্মকর্তাদের জানিয়েও প্রতিকার পাননি। বরং ভোট কর্মকর্তারা জড়িত ছিলেন জালিয়াতিতে।

নৌকার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী মো. শাহাজাহান ভোটের ফল নিয়ে কথা বলতে রাজি হননি। তার সঙ্গে যোগাযোগ করা হলে বলেন, ‘যা হওয়ার হয়েছে।’ স্থানীয় রাজনৈতিক সূত্র সমকালকে জানিয়েছে, শাহজাহানকে চুপ থাকতে বলেছেন স্থানীয় সংসদ সদস্য (এমপি) রুহুল আমীন মাদানী।

আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী প্রার্থী সাইদুর রহমানের অভিযোগ, এমপি রুহুল আমীন মাদানীর প্রভাব খাটিয়ে কেন্দ্র দখল করেছেন নৌকার প্রার্থী।

অভিযোগ সম্পর্কে জানতে চাইলে রুহুল আমীন মাদানী সমকালকে বলেন, ১১ নভেম্বরের পর তিনি কোথাও যাননি। প্রভাব বিস্তারের সুযোগও নেই, কেন্দ্রে পুলিশ ও ম্যাজিস্ট্রেট ছিল।

চেয়ারম্যান ও মেম্বার পদে চারটি কেন্দ্রে ভোট সংখ্যায় গরমিল সম্পর্কে রুহুল আমীন মাদানীর দাবি, স্থানীয় নির্বাচনে মাঝেমধ্যেই এমন হয়। আঞ্চলিকতার কারণে অনেক ভোটার মেম্বার পদে ভোট না দিয়ে ব্যালট নিয়ে চলে যায়। আর যে দুই কেন্দ্রে নৌকা ৯৬ এবং ৯৮ শতাংশ ভোট পেয়েছে, সেগুলো আওয়ামী লীগ অধ্যুষিত এলাকা।

ফলাফল বিশ্নেষণে দেখা যায়, সবচেয়ে বেশি ভোট গরমিল হয়েছে ৫৫ নম্বর ছলিমপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় কেন্দ্রে। এই কেন্দ্রের দুই হাজার ৯৬৯ ভোটের মধ্যে চেয়ারম্যান পদে পড়েছে দুই হাজার ৫১২ ভোট। কিন্তু মহিলা মেম্বার পদে পড়েছে দুই হাজার ৩৪ ভোট। চেয়ারম্যান পদে এর চেয়ে ৪৭৮ ভোট বেশি পড়েছে। আর সাধারণ মেম্বার পদে দুই হাজার ৪১ ভোট পড়েছে; চেয়ারম্যান পদে এর চেয়ে ৪৭১ ভোট বেশি পড়েছে।

ছলিমপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় কেন্দ্রে চেয়ারম্যান পদে ২৭টি ভোট বাতিল হওয়ায় বৈধ ভোট সংখ্যা দুই হাজার ৪৮৭। এর মধ্যে নৌকা পেয়েছে দুই হাজার ৪০০ ভোট, যা প্রদত্ত বৈধ ভোটের ৯৬ দশমিক ৫ শতাংশ। নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী আনারস প্রতীকে মাত্র ১০ ভোট পেয়েছেন। অপর তিন প্রার্থী যথাক্রমে ১৩, ০ ও ৬ ভোট পেয়েছেন। আওয়ামী লীগের প্রার্থী জাকির হোসেন সমকালকে বলেন, ভোটাররা তাকে ভালোবাসে। সে কারণেই ৯৬ দশমিক ৫ শতাংশ ভোট পেয়েছেন।

ভোটের সংখ্যায় এত গরমিল প্রসঙ্গে রিটার্নিং কর্মকর্তা ফারুক মিয়া বলেন, ‘এর জবাব দেওয়া আমার কাজ না। ফল দিয়ে দিয়েছি। কারও আপত্তি থাকলে আদালতে যাক।’

এই কেন্দ্রে প্রিসাইডিং কর্মকর্তা ছিলেন ইবনে খালেদ। তিনি সমকালকে বলেন, ভোটের ফলাফল রিটার্নিং কর্মকর্তাকে বুঝিয়ে দিয়েছেন। কোন পদে কত ভোট পড়েছে তা এখন মনে নেই।

প্রায় ৫০০ ভোট কী করে কম-বেশি হলো? যারা চেয়ারম্যান পদে ভোট দিয়েছেন, তাদের কি মেম্বার পদের ব্যালট দেওয়া হয়নি- এমন প্রশ্নে প্রিসাইডিং কর্মকর্তা বলেন, ‘ব্যালট সবাইকে দেওয়া হয়েছে। কেউ কেউ হয়তো ভোট দিয়ে বাক্সে ফেলেনি।’ ব্যালট হারিয়ে গেছে কিনা- এ প্রশ্নে ইবনে খালেদ বলেন, ‘না।’ তাহলে কীভাবে গরমিল হলো- এর জবাবে তিনি বলেন, ‘আমি ডায়াবেটিসের রোগী। খুব অসুস্থ। আর আপনিও তো বোঝেন।’

ছলিমপুর (পশ্চিম) সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় কেন্দ্রে দুই হাজার ৭৫৬ ভোটের মধ্যে চেয়ারম্যান পদে দুই হাজার ২৯৪ ভোট পড়েছে। মহিলা মেম্বার পদে ৪৩টি কম, অর্থাৎ দুই হাজার ২৫১ ভোট পড়েছে। আবার মেম্বার পদে দুই হাজার ২৩৬ জন ভোট দিয়েছেন।

এই কেন্দ্রের প্রিসাইডিং কর্মকর্তা হারুন উর রশিদ কাঁঠাল ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাবেক যুগ্ম আহ্বায়ক। তিনি ভোটের ফল নিয়ে কথা বলতে রাজি হননি।

ছলিমপুর (পশ্চিম) কেন্দ্রে চেয়ারম্যান পদে দুই হাজার ২৮৪টি বৈধ ভোটের মধ্যে নৌকা পেয়েছে দুই হাজার ২৫৫টি। সে হিসাবে আওয়ামী লীগ প্রার্থী ৯৮ দশমিক ৭ শতাংশ ভোট পেয়েছেন। যে আট কেন্দ্রে তিনি হেরেছেন, সেখানে তিনি ১৫ হাজার ৯৯৪ ভোটের মধ্যে মাত্র ৯৬১টি পেয়েছেন, যা ৮ শতাংশের কিছু বেশি।

চিকনা মনোহর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় কেন্দ্রে তিন হাজার ৫৭৯ ভোটারের মধ্যে চেয়ারম্যান পদে দুই হাজার ৫৫৩ জন ভোট দিয়েছেন। রিটার্নিং কর্মকর্তার দেওয়া ফল অনুযায়ী, মহিলা মেম্বার পদে দুই হাজার ৪২০ জন ভোট দিয়েছেন। চেয়ারম্যান পদে ১৩৩টি ভোট বেশি পড়েছে। মেম্বার পদে ভোট পড়েছে দুই হাজার ৫৩৫টি। এই কেন্দ্রে ৯১৫ ভোট পেয়ে প্রথম হয়েছে নৌকা।

প্রিসাইডিং কর্মকর্তা সাইফুল ইসলাম বলেন, তিন পদেই দুই হাজার ৫৩৫ ভোট পড়েছে। সেভাবেই তিনি ফল তৈরি করে পাঠিয়েছেন। এর বেশি জানা নেই।

চক পাঁচপাড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় কেন্দ্রে চেয়ারম্যান পদে দুই হাজার ১২৮ ভোটের এক হাজার ৬৬০টি পড়েছে। মহিলা মেম্বার পদে এক হাজার ৬২৫ এবং মেম্বার পদে এক হাজার ৬৫৩ ভোট পড়েছে। এই কেন্দ্রেও প্রথম হয়েছে নৌকা।

রিটার্নিং কর্মকর্তার স্বাক্ষরিত ফল অনুযায়ী, চেয়ারম্যান পদে ২১ হাজার ৩২৯, মহিলা মেম্বার পদে ২০ হাজার ৫৯৭ এবং মেম্বার পদে ২০ হাজার ৫৩৯ ভোট পড়েছে।

সুজন সম্পাদক ড. বদিউল আলম মজুমদার সমকালকে বলেন, নির্বাচন কমিশন সব সময় বলে অনিয়মের প্রমাণ পায় না। ত্রিশাল ইউনিয়নের ফলাফল বলছে কী পর্যায়ে কারচুপি হয়েছে। কমিশনের উচিত ফল স্থগিত রেখে তদন্ত করে ব্যবস্থা নেওয়া। এত বড় গরমিল তদন্ত না করা হলে দেশে একদিন নির্বাচন বলে কিছু থাকবে না।

উৎসঃ   সমকাল

The post ভোটে কারচুপির প্রমাণ নথিপত্রে appeared first on TheBarta.com.

]]>
https://thebarta.com/politics/%e0%a6%ad%e0%a7%8b%e0%a6%9f%e0%a7%87-%e0%a6%95%e0%a6%be%e0%a6%b0%e0%a6%9a%e0%a7%81%e0%a6%aa%e0%a6%bf%e0%a6%b0-%e0%a6%aa%e0%a7%8d%e0%a6%b0%e0%a6%ae%e0%a6%be%e0%a6%a3-%e0%a6%a8%e0%a6%a5%e0%a6%bf/feed/ 0
রাজনৈতিক সমঝোতা না হওয়াই বড় বাধা https://thebarta.com/top-news/%e0%a6%b0%e0%a6%be%e0%a6%9c%e0%a6%a8%e0%a7%88%e0%a6%a4%e0%a6%bf%e0%a6%95-%e0%a6%b8%e0%a6%ae%e0%a6%9d%e0%a7%8b%e0%a6%a4%e0%a6%be-%e0%a6%a8%e0%a6%be-%e0%a6%b9%e0%a6%93%e0%a7%9f%e0%a6%be%e0%a6%87/ https://thebarta.com/top-news/%e0%a6%b0%e0%a6%be%e0%a6%9c%e0%a6%a8%e0%a7%88%e0%a6%a4%e0%a6%bf%e0%a6%95-%e0%a6%b8%e0%a6%ae%e0%a6%9d%e0%a7%8b%e0%a6%a4%e0%a6%be-%e0%a6%a8%e0%a6%be-%e0%a6%b9%e0%a6%93%e0%a7%9f%e0%a6%be%e0%a6%87/#respond Sat, 04 Dec 2021 22:03:27 +0000 https://thebarta.com/?p=140229

অসুস্থ বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়াকে বিদেশে উন্নত চিকিৎসা নেওয়ার অনুমতি দেওয়া নিয়ে পর্দার আড়ালে চলছে নানামুখী তৎপরতা। সরকার চায় রাজনৈতিক সমঝোতা, আর নিঃশর্ত বিদেশ গমন চায় বিএনপি। সাজাপ্রাপ্ত সাবেক প্রধানমন্ত্রীকে সহজেই ‘বিশেষ বিবেচনায় ছাড়’ দিতে নারাজ ক্ষমতাসীন দল। নির্বাহী আদেশের সুবিধা পেতে খালেদা জিয়া তথা বিএনপিকেও কিছুটা রাজনৈতিক ছাড় দেওয়ার শর্ত সামনে আনছে সরকারপক্ষ। নির্ভরযোগ্য […]

The post রাজনৈতিক সমঝোতা না হওয়াই বড় বাধা appeared first on TheBarta.com.

]]>

অসুস্থ বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়াকে বিদেশে উন্নত চিকিৎসা নেওয়ার অনুমতি দেওয়া নিয়ে পর্দার আড়ালে চলছে নানামুখী তৎপরতা। সরকার চায় রাজনৈতিক সমঝোতা, আর নিঃশর্ত বিদেশ গমন চায় বিএনপি। সাজাপ্রাপ্ত সাবেক প্রধানমন্ত্রীকে সহজেই ‘বিশেষ বিবেচনায় ছাড়’ দিতে নারাজ ক্ষমতাসীন দল। নির্বাহী আদেশের সুবিধা পেতে খালেদা জিয়া তথা বিএনপিকেও কিছুটা রাজনৈতিক ছাড় দেওয়ার শর্ত সামনে আনছে সরকারপক্ষ।

নির্ভরযোগ্য সূত্র জানিয়েছে, সরকারি মহল থেকে পাসপোর্টে খালেদা জিয়ার ১৫ আগস্ট জন্ম তারিখটি পরিবর্তন, দুর্নীতির দায় স্বীকার করে রাষ্ট্রপতির কাছে ক্ষমা প্রার্থনা এবং রাজনীতি থেকে ইস্তফা নেওয়ার শর্তারোপ করা হয়েছে। রাজনৈতিকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হওয়ার আশঙ্কায় এমন ছাড় দিয়ে কঠিন শর্ত তিনটিতে কোনোভাবেই রাজি নয় বিএনপি এবং খালেদা জিয়া। দু’পক্ষের এই অনড় অবস্থানের কারণে ঝুলে আছে খালেদা জিয়ার বিদেশে চিকিৎসা নেওয়ার অনুমতি পাওয়ার সিদ্ধান্ত। অবশ্য এই স্পর্শকাতর বিষয়টি নিয়ে প্রকাশ্যে মুখ খুলতে নারাজ আওয়ামী লীগ ও বিএনপির শীর্ষপর্যায়ে নেতারা।

বিএনপি হাইকমান্ড আশা করেন, খালেদা জিয়ার উন্নত চিকিৎসার ইস্যুতে এরই মধ্যে দেশি-বিদেশিদের সমর্থন বাড়ায় সরকারের ওপর চাপ বাড়ছে; পাশাপাশি মাঠপর্যায়ে বিএনপির লাগাতার কর্মসূচিতে জনমত আরও পক্ষে আসবে এবং এ অবস্থায় বাধ্য হয়েই সাবেক প্রধানমন্ত্রীকে বিদেশে চিকিৎসার অনুমতি দেবে সরকার।

অন্যদিকে সরকারি দলের নীতিনির্ধারক মহল মনে করেন, বিএনপি খালেদা জিয়ার অসুস্থতা নিয়ে রাজনীতি করছে। তারা আসলে খালেদা জিয়ার সুচিকিৎসা চায় না। মানবিক তথা বিশেষ বিবেচনায় রাষ্ট্রপতি বা প্রধানমন্ত্রীর নির্বাহী ক্ষমতাবলে সাজা মওকুফ পেতে হলে বিএনপিকেই এগিয়ে আসতে হবে। নেত্রীর সুচিকিৎসার কথা বিবেচনায় এনে ‘কিছু পেতে’ বিএনপিরও ‘কিছু ছাড়’ দেওয়া উচিত।

যোগাযোগ করা হলে বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর গতকাল শনিবার সমকালকে বলেন, ‘এ মুহূর্তে সাবেক প্রধানমন্ত্রী খালেদা জিয়ার বড় প্রয়োজন উন্নত চিকিৎসা পাওয়া। এটা তার সাংবিধানিক মৌলিক অধিকার। সে অধিকার থেকে বঞ্চিত হচ্ছেন তিনি। বিএনপি চেয়ারপারসন সম্পূর্ণভাবে রাজনৈতিক প্রতিহিংসার শিকার। বিষয়টিতে আমরা বারবার সরকারের প্রতি আহ্বান জানিয়ে আসছি।’

রাজনৈতিক সমঝোতার শর্তের বেড়াজালে খালেদা জিয়ার বিদেশে চিকিৎসার অনুমতি আটকে আছে কিনা- এমন প্রশ্নের জবাবে মির্জা ফখরুল বলেন, তাকে মিথ্যা মামলা দিয়ে সাজা দেওয়া হয়েছে। তারপরও ফৌজদারি কার্যবিধির ৪০১ ধারায় সরকার খালেদা জিয়াকে বিদেশে চিকিৎসার অনুমতি দিতে পারে। বিএনপি ও খালেদা জিয়ার পরিবার সব রকম চেষ্টা চালিয়ে আসছে। এখানে শর্তের বিষয় কেন আসবে? তিনি বলেন, ‘তারপরও আমরা আশা করছি, দেরিতে হলেও সরকারের শুভবুদ্ধির উদয় হবে, খালেদা জিয়ার সুচিকিৎসার সুযোগ দেবে।

অন্যদিকে আইনমন্ত্রী আনিসুল হক গতকাল সমকালকে বলেছেন, বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার মুক্তি ও বিদেশে চিকিৎসার অনুমতি দেওয়ার আবেদনটি গুরুত্বসহকারে সরকার পর্যালোচনা করছে। আলাপ-আলোচনা করে যতটুকু সম্ভব সিদ্ধান্ত নেওয়া যায়, তা নেওয়া হবে। খালেদা জিয়ার বিষয়ে রাজনৈতিক কোনো সমঝোতার প্রক্রিয়া চলছে কিনা- এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি কোনো মন্তব্য করতে চান না বলে জানান।

উচ্চ পর্যায়ের একাধিক সূত্র জানিয়েছে, প্রকাশ্যে ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগ নেতা এবং বিএনপির শীর্ষ নেতারা এ নিয়ে আইনি ব্যাখ্যা দিয়ে বাগ্‌যুদ্ধ চালালেও পর্দার আড়ালে রয়েছে ভিন্ন চিত্র। সাবেক প্রধানমন্ত্রীর বিদেশে চিকিৎসার অনুমতি দেওয়া বিষয়ে বিএনপির সঙ্গে রাজনৈতিক সমঝোতা প্রত্যাশা করছে সরকারের উচ্চ মহল। এ ক্ষেত্রে রাষ্ট্রপতির কাছে দুর্নীতির দায় স্বীকার করে ক্ষমা প্রার্থনার বিষয়টি সামনে আনা হয়েছে। বিষয়টি নিয়ে বিএনপির উচ্চ পর্যায়ের নেতারা নিজেদের মধ্যে আলাপ-আলোচনাও করেছেন। তবে রাজনৈতিক ক্যারিয়ার নষ্ট করে কোনো সমঝোতার মাধ্যমে বিদেশে উন্নত চিকিৎসা নেওয়ার পক্ষে সায় নেই স্বয়ং খালেদা জিয়ার। কিছুটা সুস্থ থাকার সময়ে তিনি সাফ জানিয়েছেন- কোনো মিথ্যা অভিযোগের কাছে নতি স্বীকার করবেন না। বিদেশে চিকিৎসা তার মৌলিক ও সাংবিধানিক অধিকার।

চেয়ারপারসনের এমন কঠোর মনোভাবে দলের শীর্ষ নেতারাও ঐকমত্য পোষণ করেন। তারা এখন নিঃশর্তে খালেদা জিয়াকে বিদেশে চিকিৎসার জন্য পাঠানোর ব্যাপারে অনমনীয় মনোভাব প্রকাশ করছেন।

সূত্র জানায়, রাজনৈতিক বিশ্বাস-অবিশ্বাসের দোলাচলেও খালেদা জিয়াকে বিদেশে যেতে অনুমতি দেওয়ার সিদ্ধান্তটি আটকে আছে। বর্তমানে নির্বাহী আদেশে শর্তসাপেক্ষে যেভাবে তিনি জামিনে মুক্ত থাকছেন, বিদেশে গিয়ে সে শর্ত কতটুকু মানবেন- তা নিয়ে চিন্তিত সরকারপক্ষ। অতীতে বিদেশে গিয়ে অর্থাৎ নিয়ন্ত্রণের বাইরে অনেক নেতা রাজনৈতিকভাবে সক্রিয় হয়ে উঠেছেন। বিদেশিদের সঙ্গে প্রকাশ্যে বৈঠক ও সরকারের বিরুদ্ধে নানা গুরুতর অভিযোগ এনে বহির্বিশ্বের জনমত অনুকূলে নেওয়ার চেষ্টা করেছেন।

সূত্রমতে, এ ধরনের আশঙ্কা থেকে সরকারের উচ্চ মহল বিএনপির পক্ষ থেকে খালেদা জিয়া দলীয় পদ থেকে ইস্তফা দিয়ে রাজনীতি করবেন না- এমন ঘোষণা দেওয়ারও প্রত্যাশা করছে। এ বিষয়টিও কোনোভাবে মেনে নেওয়া সম্ভব নয় বলে স্পষ্ট জানিয়েছে বিএনপির শীর্ষ মহল। দলটির পক্ষ থেকে বলা হয়েছে, খালেদা জিয়া তিনবারের সাবেক প্রধানমন্ত্রী। তিনি দেশের প্রচলিত আইন-কানুন মেনে চলছেন। আমৃত্যু তিনি আইনের প্রতি শ্রদ্ধাশীল থাকবেন। এখানে রাজনীতি ছেড়ে দেওয়ার মতো কোনো ঘোষণা আপসহীন নেত্রীর পরিচয়ে খ্যাতি পাওয়া খালেদা জিয়ার পক্ষে সম্ভব নয়।

সূত্র আরও জানায়, খালেদা জিয়ার বিদেশে যাওয়ার পথে আরও একটি ইস্যু সামনে আনা হয়েছে। তা হচ্ছে খালেদা জিয়ার জন্মদিন ১৫ আগস্ট হিসেবে উল্লেখ করে পাসপোর্ট নবায়ন না করা। ২০১৯ সালে তার পাসপোর্ট মেয়াদোত্তীর্ণ হয়ে গেছে। সবেমাত্র গত ৫ মে নবায়ন করতে তা পাসপোর্ট অধিদপ্তরে জমা দেওয়া হয়েছে। জন্মতারিখ প্রশ্নেই সাত মাসেও পাসপোর্টটি নবায়ন করে ফেরত দেওয়া হয়নি।

সংশ্নিষ্ট সূত্র জানিয়েছে, আওয়ামী লীগ মনে করে, খালেদা জিয়ার প্রকৃত জন্মদিন ১৫ আগস্ট নয়। হাতে সুযোগ আসায় সরকারপক্ষ ১৫ আগস্ট জন্মতারিখটি পরিবর্তন করে প্রকৃত জন্মদিন উল্লেখ করে পাসপোর্ট নবায়ন করতে চাপে রেখেছে। তবে এ বিষয়টি কোনোভাবেই মেনে নিচ্ছে না বিএনপি। দলীয় নেতারা মনে করেন, ব্যক্তিগত বিষয়ে এরূপ চাপ সরকারের ফ্যাসিবাদী আচরণ।

উন্নত চিকিৎসার জন্য খালেদা জিয়াকে বিদেশে নেওয়ার আবেদন জানিয়ে তার ছোট ভাই শামীম এস্কান্দার গত ১১ নভেম্বর স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বরাবর আবেদন করেন। পরদিন আবেদনটি স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় আইনগত মতামতের জন্য আইন মন্ত্রণালয়ে পাঠিয়েছে। আইন মন্ত্রণালয় রাষ্ট্রের প্রধান নির্বাহী ক্ষমতার অধিকারী হিসেবে প্রধানমন্ত্রীর মতামতের অপেক্ষায়।

প্রধানমন্ত্রীর পক্ষ থেকে বলা হয়েছিল, তাকে (শেখ হাসিনা) গ্রেনেড মেরে হত্যা করার চেষ্টা করেছেন খালেদা জিয়া। এর পর দুর্নীতির দায়ে সাজাপ্রাপ্ত হওয়া সত্ত্বেও মানবিকভাবে যতটুকু করার, সবই করা হয়েছে। খালেদা জিয়াকে বাসায় থেকে চিকিৎসা নেওয়ার সুযোগ করে দেওয়া হয়েছে। আইনগত কারণে এর চেয়ে বেশি কিছু করা সম্ভব নয়।

২৩ নভেম্বর বিএনপির আইনজীবীরা আইনমন্ত্রীর সঙ্গে সাক্ষাৎ করে একটি স্মারকলিপি দিয়ে আসেন। সে সময় আইনমন্ত্রী বলেছেন, বিষয়টি গুরুত্বের সঙ্গে পর্যালোচনা করা হচ্ছে।

চাপ বাড়ছে, আশাবাদী বিএনপি: পর্দার আড়ালে সমঝোতার তৎপরতা চললেও প্রকাশ্যে সরকারের ওপর চাপ তৈরি করার কৌশল নিয়েও এগোচ্ছে বিএনপি। মাঠে লাগাতার রাজনৈতিক কর্মসূচির মাধ্যমে জনমত তৈরি এবং বিদেশিদের সমর্থন পেতে কূটনীতিকদের সঙ্গেও দেখা-সাক্ষাৎ চলছে। দলের নেতারা বলছেন, সরকার খালেদা জিয়ার শারীরিক অবস্থার প্রতি গুরুত্ব না দিলেও ইতোমধ্যে দেশি-বিদেশিদের অনেকে সহানুভূতি প্রকাশ করেছেন। তারা প্রত্যক্ষ ও পরোক্ষভাবে এবং আনুষ্ঠানিক ও অনানুষ্ঠানিকভাবে খালেদা জিয়াকে উন্নত চিকিৎসার সুযোগ দেওয়ার আহ্বান জানিয়েছেন। একই সঙ্গে নিয়মিত খোঁজখবর রাখছেন। ক্ষমতাসীন জোটের বাইরে সব রাজনৈতিক দল, মানবাধিকার ও বিভিন্ন পেশাজীবী সংগঠনের নেতৃবৃন্দ এবং বিশিষ্ট নাগরিকরা খালেদা জিয়ার মুক্তি ও উন্নত চিকিৎসা করতে বিদেশে পাঠানোর আহ্বান জানিয়ে পৃথক বিবৃতি দিয়েছেন।

বিএনপি নেতারা জানান, ক্রমেই সরকারের ওপর কূটনৈতিক চাপ স্পষ্ট হচ্ছে। ঢাকায় কর্মরত প্রায় সব দেশের কূটনীতিক গত ৪ ডিসেম্বর পররাষ্ট্রমন্ত্রীর সঙ্গে সাক্ষাৎ করে সাবেক প্রধানমন্ত্রী খালেদা জিয়ার স্বাস্থ্য এবং চিকিৎসার খোঁজ নিয়েছেন। এ সময় পররাষ্ট্রমন্ত্রী এ কে আব্দুল মোমেন বিএনপি চেয়ারপারসনের বিদেশে চিকিৎসা বিষয়ে সরকারের অবস্থান কূটনীতিকদের অবহিত করেন।

সম্প্রতি অস্ট্রেলিয়ার পার্লামেন্টে ডেপুটি স্পিকার সংসদ সদস্য হিসেবে স্পিকারের দৃষ্টি আকর্ষণ করে বাংলাদেশের সাবেক প্রধানমন্ত্রী খালেদা জিয়ার সুচিকিৎসা নিশ্চিত করতে তার দেশের পক্ষ থেকে আহ্বান জানানোর অনুরোধ করেন।

আবার যুক্তরাষ্ট্রে সংবাদ সম্মেলনে বাংলাদেশের এক সাংবাদিকের প্রশ্নের জবাবে হোয়াইট হাউসের প্রেস সেক্রেটারি জেন সাকি বলেছেন, জাতীয় নিরাপত্তা টিম ও স্টেট ডিপার্টমেন্টের সঙ্গে আলোচনা করে তিনি এ বিষয়ে জানাবেন।

উৎসঃ   সমকাল

The post রাজনৈতিক সমঝোতা না হওয়াই বড় বাধা appeared first on TheBarta.com.

]]>
https://thebarta.com/top-news/%e0%a6%b0%e0%a6%be%e0%a6%9c%e0%a6%a8%e0%a7%88%e0%a6%a4%e0%a6%bf%e0%a6%95-%e0%a6%b8%e0%a6%ae%e0%a6%9d%e0%a7%8b%e0%a6%a4%e0%a6%be-%e0%a6%a8%e0%a6%be-%e0%a6%b9%e0%a6%93%e0%a7%9f%e0%a6%be%e0%a6%87/feed/ 0
১৫ দিন ধরে রোমানিয়ায় বন্দী ৫ বাংলাদেশির আকুতি, ‘আমাদের বাঁচান’ https://thebarta.com/top-news/%e0%a7%a7%e0%a7%ab-%e0%a6%a6%e0%a6%bf%e0%a6%a8-%e0%a6%a7%e0%a6%b0%e0%a7%87-%e0%a6%b0%e0%a7%8b%e0%a6%ae%e0%a6%be%e0%a6%a8%e0%a6%bf%e0%a7%9f%e0%a6%be%e0%a7%9f-%e0%a6%ac%e0%a6%a8%e0%a7%8d%e0%a6%a6/ https://thebarta.com/top-news/%e0%a7%a7%e0%a7%ab-%e0%a6%a6%e0%a6%bf%e0%a6%a8-%e0%a6%a7%e0%a6%b0%e0%a7%87-%e0%a6%b0%e0%a7%8b%e0%a6%ae%e0%a6%be%e0%a6%a8%e0%a6%bf%e0%a7%9f%e0%a6%be%e0%a7%9f-%e0%a6%ac%e0%a6%a8%e0%a7%8d%e0%a6%a6/#respond Sat, 04 Dec 2021 19:31:05 +0000 https://thebarta.com/?p=140226

উন্নত জীবনের আশায় ইউরোপের পথে পা বাড়িয়ে মানব পাচারের শিকার হয়েছেন মাদারীপুরের অর্ধশতাধিক যুবক। তাদের মধ্যে অনেকেই প্রাণ হারিয়েছেন। এসব পরিবারে চলছে শোকের মাতম। তাদের ঘরে ঘরে কান্নার রোল। সম্প্রতি মানব পাচারের শিকার ৫৭ পরিবারের পক্ষ থেকে তাদের উদ্ধার ও দালালদের বিচারের দাবিতে মানববন্ধন করা হয়। এদিকে মানব পাচারের শিকার ৫ যুবকের একটি ভিডিও গত […]

The post ১৫ দিন ধরে রোমানিয়ায় বন্দী ৫ বাংলাদেশির আকুতি, ‘আমাদের বাঁচান’ appeared first on TheBarta.com.

]]>

উন্নত জীবনের আশায় ইউরোপের পথে পা বাড়িয়ে মানব পাচারের শিকার হয়েছেন মাদারীপুরের অর্ধশতাধিক যুবক। তাদের মধ্যে অনেকেই প্রাণ হারিয়েছেন। এসব পরিবারে চলছে শোকের মাতম। তাদের ঘরে ঘরে কান্নার রোল। সম্প্রতি মানব পাচারের শিকার ৫৭ পরিবারের পক্ষ থেকে তাদের উদ্ধার ও দালালদের বিচারের দাবিতে মানববন্ধন করা হয়।

এদিকে মানব পাচারের শিকার ৫ যুবকের একটি ভিডিও গত কয়েকদিন আগে ভাইরাল হয়েছে। এক মিনিট সাত সেকেন্ডের ওই ভিডিওতে দেখা যায়, ৫ যুবক একটি ঘরে বন্দী। ভিডিওতে তারা কান্নাজড়িত কণ্ঠে উদ্ধারের আকুতি জানিয়ে বলেন, ‘গত ১৫ দিন ধরে রোমানিয়ার একটি ঘরে আমাদের আটকে রেখেছে। ঠিকমতো খাবারও দেয় না। আমরা বাঁচতে চাই, আমাদের বাঁচান।’

তারা দালাল শামিম ও আল-আমিনের কাছে টাকা দিয়েছেন বলেও দাবি করেন ভিডিওতে।

অনুসন্ধান করে জানা গেছে, রোমানিয়ায় বন্দীরা হলেন মাদারীপুর সদর উপজেলার খোয়াজপুর গ্রামের মিলন মিয়া, মস্তফাপুর ইউনিয়নের সিকি নওহাটা গ্রামের মোফাজ্জেল হাওলাদার, ডাসার উপজেলার বালিগ্রামের মৃত সৈয়দ সালামের ছেলে তানভীরম একই গ্রামের সাঈদ হাওলাদারের ছেলে বায়েজিদ হাওলাদার ও রাশেদ হাওলাদার।

বন্দীদের পরিবারের দাবি, রোমানিয়া থেকে ইতালি পাঠানোর প্রলোভন দেখিয়ে তাদের পরিবারের কাছ থেকে কয়েক লাখ টাকা হাতিয়ে নিয়েছে চক্রটি। বর্তমানে রোমানিয়ার অজ্ঞাত স্থানে আটকে রেখে পরিবারের কাছে ভিডিওবার্তা পাঠিয়ে আরও টাকা দাবি করছেন তারা। এ ঘটনায় অভিযোগ পেয়ে দালাল চক্রের একজনকে আটক করেছে মাদারীপুর সদর থানা পুলিশ।

ভুক্তভোগী পরিবারের অভিযোগ, এই দালাল চক্রের হাতেই বসনিয়ায় বন্দী রয়েছেন মাদারীপুরের আরও পাঁচ যুবক।



পাচারের শিকার রুবেলের মায়ের কান্না

গত বৃহস্পতিবার (২ ডিসেম্বর) বিকালে ভুক্তভোগী পরিবার থানায় অভিযোগ দিলে সেদিনই চক্রের আল আমিন (২৯) নামের একজনকে আটক করে পুলিশ। তিনি মাদারীপুর সদর উপজেলার হাজির হাওলা এলাকার জাফর বেপারীর ছেলে। অভিযোগ রয়েছে আরও পাঁচজনের বিরুদ্ধে।

ভুক্তভোগী পরিবারের অভিযোগ সূত্রে জানা যায়, মাদারীপুর সদর হাজির হাওলা এলাকার জাফর বেপারীর ছেলে আল আমিন (২৯), রাস্তি এলাকার শামিম আকন ও তার স্ত্রী সুমি বেগম (২৮), সিরাজ আকন (৬০), হাজির হাওলা এলাকার জাফর বেপারী ও তার স্ত্রী রীনা বেগম, সিরাজ আকনের স্ত্রী রানু বেগম একই দালাল চক্রের সদস্য। রোমানিয়ায় অবস্থানরত স্বজনদের মাধ্যমে ইতালিতে পৌঁছে দেওয়া এবং উচ্চ বেতনে চাকরির প্রলোভনে চলতি বছরের ৩ আগস্ট ভুক্তভোগী পাঁচজনের পরিবারের কাছ থেকে ৮ লাখ টাকা করে নেওয়া হয়। এক মাসের মধ্যে ইতালিতে পৌঁছে দেওয়ার কথা থাকলেও তারা কালক্ষেপণ করতে থাকেন। বর্তমানে ওই পাঁচ যুবককে ১৫ দিন ধরে রোমানিয়ায় আটকে রেখে ১০ লাখ টাকা দাবি করছেন চক্রের সদস্যরা।

রোমানিয়ায় বন্দী থাকা তানভীরের ভাই মো. সৈয়দ সেলিম বলেন, রোমানিয়া থেকে ইতালিতে পাঠাতে গ্রীসে অবস্থানরত শাহিনের সঙ্গে চুক্তি করা হয়। আল-আলিন ও তার স্ত্রী সুমিসহ সবাইকে উপস্থিত রেখে ৫ পরিবার ৮ লাখ টাকা করে মোট ৪০ লাখ টাকা দেওয়া হয় চক্রটিকে। কিন্তু তারা আমার ভাইসহ অন্যদের ইতালিতে না নিয়ে রোমানিয়ায় আটকে রেখে মুক্তিপণ দাবি করছেন। আমরা ভাইসহ সবার মুক্তি চাই এবং দোষীদের বিচার চাই।’

এদিকে গত ২০ নভেম্বর লিবিয়া থেকে ইতালি যাওয়ার পথে তিউনিসিয়ায় ট্রলার ডুবিতে মারা গেছেন মাদারীপুর সদর উপজেলার পশ্চিম খাগদী এলাকার আবুল কালাম খানের ছেলে সাব্বির খান ও বড়াইলবাড়ি গ্রামের হাবিবুর রহমান তালুকদারের ছেলে সাকিবুল।

নিহতের স্বজনরা জানান, চরনাচনা গ্রামের দালালচক্রের সক্রিয় সদস্য সেকেন মোড়লের ছেলে আতিবর ও কাশেম এবং পেয়ারপুর ইউনিয়নের বড়াইলবাড়ী গ্রামের কবির মীরার ছেলে সবুজ মীরা ও তার স্ত্রী মাহমুদা ইতালি নেওয়ার কথা বলে নিহতদের পরিবারের কাছ থেকে ১০ লাখ করে টাকা নেন।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এক নিহতের পরিবারের একজন বলেন, ‘মাদারীপুর সদর উপজেলার পেয়ারপুর ইউনিয়নের আওয়ামী লীগের এক প্রভাবশালী নেতা মোটা অংকের টাকার বিনিময় ঘটনা ধামাচাপা দিতে চেষ্টা করছেন। নিহতের ঘটনায় থানায় মামলা না দিতেও হুমকি দিয়েছেন।

এ ছাড়া মাদারীপুর সদর উপজেলার মধ্য পেয়ারপুর গ্রামের হাকিম তালুকদারের ছেলে রুবেল তালুকদার, তোতা তালুকদারের ছেলে তরিকুল ইসলাম, জুলহাস বেপারীর ছেলে আসাদ বেপারী, মির্জন মোল্লার ছেলে এলাহী মোল্লা, রাজৈরের বৈলগ্রামের সামিউল শেখসহ অর্ধশতাধিক যুবক মানব পাচারের শিকার হয়েছেন।

মানব পাচারের শিকার রুবেলের মা শাহনা বেগম বলেন, ‘আমার ছেলের খোঁজ-খবর নেই অনেক দিন। সে বেঁচে আছে নাকি মারা গেছে তাও জানি না। আমরা চাই, আমার ছেলেসহ নিখোঁজ সবার সন্ধান।’

মাদারীপুরের পুলিশ সুপার গোলাম মোস্তফা রাসেল বলেন, ‘আমরা মানবপাচারের ঘটনায় একটি লিখিত অভিযোগ পেয়েছি। অভিযোগ পাওয়ার পরেই মাদারীপুর সদর থানা পুলিশ একজনকে আটক করেছে। এ ব্যাপারে তদন্ত করে যেই দোষী প্রমাণ হবে তাকেই আইনের আওতায় আনা হবে।’

বিডি প্রতিদিন

The post ১৫ দিন ধরে রোমানিয়ায় বন্দী ৫ বাংলাদেশির আকুতি, ‘আমাদের বাঁচান’ appeared first on TheBarta.com.

]]>
https://thebarta.com/top-news/%e0%a7%a7%e0%a7%ab-%e0%a6%a6%e0%a6%bf%e0%a6%a8-%e0%a6%a7%e0%a6%b0%e0%a7%87-%e0%a6%b0%e0%a7%8b%e0%a6%ae%e0%a6%be%e0%a6%a8%e0%a6%bf%e0%a7%9f%e0%a6%be%e0%a7%9f-%e0%a6%ac%e0%a6%a8%e0%a7%8d%e0%a6%a6/feed/ 0
কুয়েট ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদকসহ ৯ শিক্ষার্থী বহিষ্কার https://thebarta.com/bangladesh/%e0%a6%95%e0%a7%81%e0%a7%9f%e0%a7%87%e0%a6%9f-%e0%a6%9b%e0%a6%be%e0%a6%a4%e0%a7%8d%e0%a6%b0%e0%a6%b2%e0%a7%80%e0%a6%97%e0%a7%87%e0%a6%b0-%e0%a6%b8%e0%a6%be%e0%a6%a7%e0%a6%be%e0%a6%b0%e0%a6%a3/ https://thebarta.com/bangladesh/%e0%a6%95%e0%a7%81%e0%a7%9f%e0%a7%87%e0%a6%9f-%e0%a6%9b%e0%a6%be%e0%a6%a4%e0%a7%8d%e0%a6%b0%e0%a6%b2%e0%a7%80%e0%a6%97%e0%a7%87%e0%a6%b0-%e0%a6%b8%e0%a6%be%e0%a6%a7%e0%a6%be%e0%a6%b0%e0%a6%a3/#respond Sat, 04 Dec 2021 13:24:22 +0000 https://thebarta.com/?p=140224

খুলনা প্রকৌশল ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের (কুয়েট) অধ্যাপক ড. মো. সেলিম হোসেনের অস্বাভাবিক মৃত্যুর ঘটনায় বিশ্ববিদ্যালয় শাখা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদকসহ ৯ শিক্ষার্থীকে বহিষ্কার করা হয়েছে। সিন্ডিকেটের ৭৬তম জরুরি সভায় তাদের বহিষ্কারের সিদ্ধান্ত হয় বলে শনিবার বিশ্ববিদ্যালয় থেকে পাঠানো এক প্রেসবিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়েছে। এতে বলা হয়, ‌‌‌‘খুলনা প্রকৌশল ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের (কুয়েট) ইলেক্ট্রিক্যাল অ্যান্ড ইলেক্ট্রনিকস ইঞ্জিনিয়ারিং (ইইই) […]

The post কুয়েট ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদকসহ ৯ শিক্ষার্থী বহিষ্কার appeared first on TheBarta.com.

]]>

খুলনা প্রকৌশল ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের (কুয়েট) অধ্যাপক ড. মো. সেলিম হোসেনের অস্বাভাবিক মৃত্যুর ঘটনায় বিশ্ববিদ্যালয় শাখা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদকসহ ৯ শিক্ষার্থীকে বহিষ্কার করা হয়েছে।

সিন্ডিকেটের ৭৬তম জরুরি সভায় তাদের বহিষ্কারের সিদ্ধান্ত হয় বলে শনিবার বিশ্ববিদ্যালয় থেকে পাঠানো এক প্রেসবিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়েছে।

এতে বলা হয়, ‌‌‌‘খুলনা প্রকৌশল ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের (কুয়েট) ইলেক্ট্রিক্যাল অ্যান্ড ইলেক্ট্রনিকস ইঞ্জিনিয়ারিং (ইইই) বিভাগের প্রফেসর ড. মো. সেলিম হোসেনের অস্বাভাবিক মৃত্যুর ঘটনার বিষয়টি ২ ও ৩ ডিসেম্বর অনুষ্ঠিত বিশ্ববিদ্যালয়ের সিন্ডিকেটের ৭৬ তম জরুরি সভায় উত্থাপন করা হয়।

সিসিটিভির ফুটেজ ও অন্যান্য তথ্যাদি পর্যালোচনা করে বিষয়টির প্রাথমিক সত্যতা প্রতীয়মান হওয়ায় বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র শৃঙ্খলা ও আচরণবিধির আলোকে অসদাচরণের আওতায় সিন্ডিকেট ৯ শিক্ষার্থীকে বিশ্ববিদ্যালয় থেকে সাময়িকভাবে বহিষ্কার করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে।’

বহিষ্কার হওয়া শিক্ষার্থীরা হলেন- কুয়েট বিশ্ববিদ্যালয় শাখা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক এবং কম্পিউটার সায়েন্স অ্যান্ড ইঞ্জিনিয়ারিং (সিএসই) বিভাগের শিক্ষার্থী সাদমান নাহিয়ান সেজান (রোল-১৩০৭০২৪), সিভিল ইঞ্জিনিয়ারিং (সিই) বিভাগের শিক্ষার্থী মো. তাহামিদুল হক ইশরাক (রোল-১৫০১০৯০), এলই বিভাগের শিক্ষার্থী মো. সাদমান সাকিব (রোল-১৫১৯০৩৩), একই বিভাগের শিক্ষার্থী আ. স. ম. রাগিব আহসান মুন্না (রোল-১৫১৯০৪৮), সিই বিভাগের শিক্ষার্থী মাহমুদুল হাসান (রোল-১৬০১০২৯), (মেরিন ইঞ্জিনিয়ারিং (এমই) বিভাগের শিক্ষার্থী মোহাম্মাদ কামরুজ্জামান (রোল-১৬০৫০৩৯), সিএসই বিভাগের শিক্ষার্থী মো. রিয়াজ খান নিলয় (রোল-১৬০৭০৭৫), এমই বিভাগের শিক্ষার্থী ফয়সাল আহমেদ রিফাত (রোল-১৬০৫০৯৩) ও ম্যাটেরিয়ালস সায়েন্স অ্যান্ড ইঞ্জিনিয়ারিং (এমএসই) বিভাগের শিক্ষার্থী মো. নাইমুর রহমান অন্তু (রোল-১৬২৭০১০)।

গত ৩০ নভেম্বর ছাত্রলীগের একদল নেতাকর্মীর সাক্ষাতের পর ড. সেলিমের রহস্যজনক মৃত্যু হয়। ক্যাম্পাসের বাসার টয়লেটে অচেতন হয়ে পড়ার পর তাকে হাসপাতালে নেওয়া হলে চিকিৎসক মৃত ঘোষণা করেন।

অধ্যাপক সেলিম হোসেনের মৃত্যুর প্রতিবাদে বৃহস্পতিবার ক্যাম্পাসে বিক্ষোভ করেন শিক্ষক-শিক্ষার্থীরা।

তারা এ ঘটনার সুষ্ঠু তদন্তসহ চার দফা দাবি জানিয়েছেন। এদিকে ঘটনার প্রতিবাদে শিক্ষক সমিতি সব ধরনের একাডেমিক কার্যক্রম বর্জন করেছে। আগামী ১৩ ডিসেম্বর পর্যন্ত বিশ্ববিদ্যালয় বন্ধ ঘোষণা করা হয়েছে। গতকাল শুক্রবার হলত্যাগ করেছেন সাধারণ শিক্ষার্থীরা।

অভিযোগ উঠেছে, ওই সাক্ষাতে ছাত্রলীগ নেতাকর্মীরা তাকে লাঞ্ছিত করেন এবং মানসিক নির্যাতন চালান। এ ঘটনায় শিক্ষক-শিক্ষার্থীদের ক্ষোভের মুখে তদন্ত কমিটি গঠন করে বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ।

শুরুতে তিন সদস্যের তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়। বৃহস্পতিবার কমিটির দুই সদস্য দায়িত্ব পালনে অপারগতা প্রকাশ করেন। এরপর শুক্রবার রাতে নতুন করে পাঁচ সদস্যের কমিটি গঠন করা হয়।

কমিটিতে কুয়েটের ইলেকট্রিক্যাল অ্যান্ড ইলেকট্রনিকস ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের অধ্যাপক ড. মহিউদ্দিন আহমেদকে সভাপতি ও গণিত বিভাগের অধ্যাপক ড. উদ্দিনকে সদস্য সচিব করা হয়েছে।

এ ছাড়া সদস্য করা হয়েছে কুয়েটের অধ্যাপক ড. খন্দকার মাহবুব, খুলনা জেলা প্রশাসকের একজন প্রতিনিধি ও খুলনা মেট্রোপলিটন পুলিশ কমিশনারের একজন প্রতিনিধিকে।

আগামী ১০ দিনের মধ্যে তাদের তদন্ত প্রতিবেদন ভিসির কাছে জমা দিতে নির্দেশনা দেয়া হয়েছে।

উৎসঃ   jugantor

The post কুয়েট ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদকসহ ৯ শিক্ষার্থী বহিষ্কার appeared first on TheBarta.com.

]]>
https://thebarta.com/bangladesh/%e0%a6%95%e0%a7%81%e0%a7%9f%e0%a7%87%e0%a6%9f-%e0%a6%9b%e0%a6%be%e0%a6%a4%e0%a7%8d%e0%a6%b0%e0%a6%b2%e0%a7%80%e0%a6%97%e0%a7%87%e0%a6%b0-%e0%a6%b8%e0%a6%be%e0%a6%a7%e0%a6%be%e0%a6%b0%e0%a6%a3/feed/ 0
‘রাষ্ট্র মেরামতের প্রয়োজনে ছাত্ররাই রাজপথে নামবে’ https://thebarta.com/politics/%e0%a6%b0%e0%a6%be%e0%a6%b7%e0%a7%8d%e0%a6%9f%e0%a7%8d%e0%a6%b0-%e0%a6%ae%e0%a7%87%e0%a6%b0%e0%a6%be%e0%a6%ae%e0%a6%a4%e0%a7%87%e0%a6%b0-%e0%a6%aa%e0%a7%8d%e0%a6%b0%e0%a7%9f%e0%a7%8b%e0%a6%9c/ https://thebarta.com/politics/%e0%a6%b0%e0%a6%be%e0%a6%b7%e0%a7%8d%e0%a6%9f%e0%a7%8d%e0%a6%b0-%e0%a6%ae%e0%a7%87%e0%a6%b0%e0%a6%be%e0%a6%ae%e0%a6%a4%e0%a7%87%e0%a6%b0-%e0%a6%aa%e0%a7%8d%e0%a6%b0%e0%a7%9f%e0%a7%8b%e0%a6%9c/#respond Sat, 04 Dec 2021 13:22:22 +0000 https://thebarta.com/?p=140221

জাতীয় সমাজতান্ত্রিক দল-জেএসডির সভাপতি আ স ম আবদুর রব বলেছেন, সড়কে নির্বিচারে ছাত্র হত্যা, গণমানুষের অধিকার কেড়ে নেওয়া সর্বোপরি রক্তের বিনিময়ে অর্জিত স্বাধীনতা-সার্বভৌমত্ব যখন হুমকিতে তখন ছাত্ররা অবশ্যই রাজপথে নামতে বাধ্য। শনিবার (৪ ডিসেম্বর) বিকেলে জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে ঢাকা মহানগর উত্তর জেএসডির উদ্যোগে সড়কে মানুষ হত্যা ও নির্বাচনের নামে নৈরাজ্য বন্ধ এবং শিক্ষার্থীদের ন্যায়সঙ্গত ১১ […]

The post ‘রাষ্ট্র মেরামতের প্রয়োজনে ছাত্ররাই রাজপথে নামবে’ appeared first on TheBarta.com.

]]>

জাতীয় সমাজতান্ত্রিক দল-জেএসডির সভাপতি আ স ম আবদুর রব বলেছেন, সড়কে নির্বিচারে ছাত্র হত্যা, গণমানুষের অধিকার কেড়ে নেওয়া সর্বোপরি রক্তের বিনিময়ে অর্জিত স্বাধীনতা-সার্বভৌমত্ব যখন হুমকিতে তখন ছাত্ররা অবশ্যই রাজপথে নামতে বাধ্য।

শনিবার (৪ ডিসেম্বর) বিকেলে জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে ঢাকা মহানগর উত্তর জেএসডির উদ্যোগে সড়কে মানুষ হত্যা ও নির্বাচনের নামে নৈরাজ্য বন্ধ এবং শিক্ষার্থীদের ন্যায়সঙ্গত ১১ দফা বাস্তবায়নের দাবিতে আয়োজিত সমাবেশ ও বিক্ষোভ মিছিলে তিনি এ কথা বলেন।

জেএসডি সভাপতি বলেন, আমাদের মতো গণতন্ত্রহীন দেশে রাজপথও ছাত্রদের গণমানুষের অধিকার আদায়ের শিক্ষায় শিক্ষিত করে তোলে। রাজপথ ছাত্রদের সমাজের প্রয়োজনে নিজেদের উৎসর্গ করার নৈতিক শিক্ষাদান করে। রাষ্ট্র মেরামতের প্রয়োজনে ছাত্ররাই রাজপথে নামবে।

আ স ম রব বলেন, বাঙালির ইতিহাসে অন্যায়, অবিচার ও নিপীড়নের বিরুদ্ধে ছাত্ররাই আন্দোলনের সূচনা করেছে। এ দেশে ভাষা আন্দোলন, স্বাধিকার আন্দোলন ও সশস্ত্র মুক্তিসংগ্রামের ঐতিহাসিক ও অগ্রণী ভূমিকা রেখেছে ছাত্র আন্দোলন। সুতরাং বৈষম্যহীন মানবিক ও নৈতিক রাষ্ট্র বিনির্মাণের সংগ্রামে ছাত্রদেরও অংশ নিতে হবে। গত কয়েক বছরের ছাত্র আন্দোলনের বৈশিষ্ট্য থেকে পরিলক্ষিত হচ্ছে যে, অদূর ভবিষ্যতে তাদের ঘোষিত ‘রাষ্ট্র মেরামত’ তথা ন্যায়বিচারের নিশ্চয়তাসহ শাসনব্যবস্থায় বড় ধরনের পরিবর্তনে অনুঘটকের ভূমিকায় অবতীর্ণ হবে ছাত্রসমাজ।

জেএসডি সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট ছানোয়ার হোসেন তালুকদার বলেন, সারাদেশে যেভাবে হত্যা-নৈরাজ্য অব্যাহত আছে তাতে যেকোনো সময় গণবিস্ফোরণ ঘটতে পারে, পরিস্থিতি আরো জটিল আকার ধারণ করতে পারে। তার থেকে উত্তরণ কোনো দলীয় সরকারের পক্ষে সম্ভব নয়। এ জন্য সর্বস্তরের জনগণের অংশীদারত্ব ভিত্তিক জাতীয় সরকার গঠন জরুরি হয়ে পড়েছে।

ইঞ্জিনিয়ার আবুল মোবারকের সভাপতিত্বে সমাবেশে আরও বক্তব্য রাখেন জেএসডির কার্যকরী সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা মো. সিরাজ মিয়া, সহ-সভাপতি তানিয়া রব, কার্যকরী সাধারণ সম্পাদক শহীদ উদ্দিন মাহমুদ স্বপন, সহ-সভাপতি অ্যাডভোকেট কে এম জাবির, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট সৈয়দ বেলায়েত হোসেন বেলাল, শ্রমিক জোট সভাপতি মোশারফ হোসেন, সাংগঠনিক সম্পাদক আবদুল্লাহ আল তারেক, সাংগঠনিক সম্পাদক এম এ ইউসুফ, বাংলাদেশ ছাত্রলীগ সভাপতি তৌফিকুজ্জামান পীরাচা প্রমুখ।

উৎসঃ   বাংলানিউজ

The post ‘রাষ্ট্র মেরামতের প্রয়োজনে ছাত্ররাই রাজপথে নামবে’ appeared first on TheBarta.com.

]]>
https://thebarta.com/politics/%e0%a6%b0%e0%a6%be%e0%a6%b7%e0%a7%8d%e0%a6%9f%e0%a7%8d%e0%a6%b0-%e0%a6%ae%e0%a7%87%e0%a6%b0%e0%a6%be%e0%a6%ae%e0%a6%a4%e0%a7%87%e0%a6%b0-%e0%a6%aa%e0%a7%8d%e0%a6%b0%e0%a7%9f%e0%a7%8b%e0%a6%9c/feed/ 0
১৩০ বছরের রেকর্ড ভাঙতে চলেছে ঘূর্ণিঝড় জাওয়াদ https://thebarta.com/international/%e0%a7%a7%e0%a7%a9%e0%a7%a6-%e0%a6%ac%e0%a6%9b%e0%a6%b0%e0%a7%87%e0%a6%b0-%e0%a6%b0%e0%a7%87%e0%a6%95%e0%a6%b0%e0%a7%8d%e0%a6%a1-%e0%a6%ad%e0%a6%be%e0%a6%99%e0%a6%a4%e0%a7%87-%e0%a6%9a%e0%a6%b2/ https://thebarta.com/international/%e0%a7%a7%e0%a7%a9%e0%a7%a6-%e0%a6%ac%e0%a6%9b%e0%a6%b0%e0%a7%87%e0%a6%b0-%e0%a6%b0%e0%a7%87%e0%a6%95%e0%a6%b0%e0%a7%8d%e0%a6%a1-%e0%a6%ad%e0%a6%be%e0%a6%99%e0%a6%a4%e0%a7%87-%e0%a6%9a%e0%a6%b2/#respond Sat, 04 Dec 2021 13:20:34 +0000 https://thebarta.com/?p=140218

মাসের নাম ডিসেম্বর। পশ্চিমবঙ্গের মানুষ অধীর আগ্রহে অপেক্ষা করে রয়েছে শীতের। তবে ঘূর্ণিঝড়ের প্রকোপে শীতের আগমন অনিশ্চিত। ২০২১ সালের এই ঘটনা বিগত ৪০ বছরে দেখেনি পশ্চিমবঙ্গ। এ যেন শীতকাল নয়, বরং বর্ষা। বাংলার উপকূলে জাওয়াদের আগমন এখনও নিশ্চিত নয়। মনে করা হচ্ছে গভীর নিম্নচাপ রূপে বাংলার আকাশে হানা দিতে পারে জাওয়াদ। এর আগে শেষবার ১৯৮১ […]

The post ১৩০ বছরের রেকর্ড ভাঙতে চলেছে ঘূর্ণিঝড় জাওয়াদ appeared first on TheBarta.com.

]]>

মাসের নাম ডিসেম্বর। পশ্চিমবঙ্গের মানুষ অধীর আগ্রহে অপেক্ষা করে রয়েছে শীতের। তবে ঘূর্ণিঝড়ের প্রকোপে শীতের আগমন অনিশ্চিত। ২০২১ সালের এই ঘটনা বিগত ৪০ বছরে দেখেনি পশ্চিমবঙ্গ। এ যেন শীতকাল নয়, বরং বর্ষা। বাংলার উপকূলে জাওয়াদের আগমন এখনও নিশ্চিত নয়। মনে করা হচ্ছে গভীর নিম্নচাপ রূপে বাংলার আকাশে হানা দিতে পারে জাওয়াদ।

এর আগে শেষবার ১৯৮১ সালে ডিসেম্বরে ঘূর্ণিঝড় দেখেছিল বাংলা। সেবারও জিসেম্বরের গোড়ার দিকে ঘূর্ণিঝড় ‘থ্রিবি’ হানা দিয়েছিল পশ্চিমবঙ্গে। আর সেই ঘূর্ণিঝড়ের ৪০ বছর পর ফের একবার ডিসেম্বরে বাংলায় হানা দিতে পারে ঘূর্ণিঝড়। ১৯৮১ সালের ঘূর্ণিঝড় থ্রিবি পশ্চিমবঙ্গের পাশাপাশি হানা দিয়েছিল বাংলাদেশেও। মারা গিয়েছিলেন প্রায় ২০০ জন।

এদিকে জাওয়াদের হাত ধরে উড়িষ্যায় ভাঙতে চলেছে ১৩০ বছরের রেকর্ড। এর আগে ১৩০ বছর আগে ডিসেম্বরে উড়িষ্যা উপকূলে হানা দিয়েছিল কোনও ঘূর্ণিঝড়। তবে এই ক্ষেত্রে পুরীর কাছে এসে এই ঘূর্ণিঝড় বাঁক নিতে পারে পশ্চিমবঙ্গের দিকে। সেই ক্ষেত্রে ল্যান্ডফল না হলে অক্ষত থাকবে ১৩০ বছরের রেকর্ড।

আলিপুর আবহাওয়া অফিসের সর্বশেষ খবর অনুযায়ী, ঘূর্ণিঝড় জাওয়াদ আজ সকালে উপস্থিত হয়েছে অন্ধ্রপ্রদেশ-ওড়িশা উপকূলে। পাঁচ তারিখ পৌঁছাবে পুরী। তারপরই বাংলামুখী হবে জাওয়াদ। আজ বিকেল থেকেই ঘূর্ণিঝড়ের প্রভাব অনুভব করতে পারছেন উপকূলবর্তী জেলার বাসিন্দারা। বিকেল থেকে বেড়েছে সাগরের উপরে হাওয়ার গতি। রবিবার থেকে বৃষ্টির পরিমাণ বাড়বে পশ্চিমবঙ্গে।

আজ সকালে ঘূর্ণিঝড়টি উত্তর ও উত্তর পশ্চিম দিকে সরতে শুরু করে। উড়িষ্যা উপকূল হয়ে আগামীকাল রবিবার দুপুর নাগাদ ঘূর্ণিঝড়টি পুরী উপকূলে প্রবেশ করবে। তবে ঘূর্ণিঝড়ের ল্যান্ডফলের বিষয়ে এখনও কোনও স্পষ্ট ধারণা পাওয়া যায়নি।

উৎসঃ   দেশ রুপান্তর

The post ১৩০ বছরের রেকর্ড ভাঙতে চলেছে ঘূর্ণিঝড় জাওয়াদ appeared first on TheBarta.com.

]]>
https://thebarta.com/international/%e0%a7%a7%e0%a7%a9%e0%a7%a6-%e0%a6%ac%e0%a6%9b%e0%a6%b0%e0%a7%87%e0%a6%b0-%e0%a6%b0%e0%a7%87%e0%a6%95%e0%a6%b0%e0%a7%8d%e0%a6%a1-%e0%a6%ad%e0%a6%be%e0%a6%99%e0%a6%a4%e0%a7%87-%e0%a6%9a%e0%a6%b2/feed/ 0
শুধু নভেম্বরেই ৩৭৯ সড়ক দুর্ঘটনায় প্রাণ গেলো ৪১৩ জনের https://thebarta.com/bangladesh/%e0%a6%b6%e0%a7%81%e0%a6%a7%e0%a7%81-%e0%a6%a8%e0%a6%ad%e0%a7%87%e0%a6%ae%e0%a7%8d%e0%a6%ac%e0%a6%b0%e0%a7%87%e0%a6%87-%e0%a7%a9%e0%a7%ad%e0%a7%af-%e0%a6%b8%e0%a6%a1%e0%a6%bc%e0%a6%95-%e0%a6%a6/ https://thebarta.com/bangladesh/%e0%a6%b6%e0%a7%81%e0%a6%a7%e0%a7%81-%e0%a6%a8%e0%a6%ad%e0%a7%87%e0%a6%ae%e0%a7%8d%e0%a6%ac%e0%a6%b0%e0%a7%87%e0%a6%87-%e0%a7%a9%e0%a7%ad%e0%a7%af-%e0%a6%b8%e0%a6%a1%e0%a6%bc%e0%a6%95-%e0%a6%a6/#respond Sat, 04 Dec 2021 13:18:14 +0000 https://thebarta.com/?p=140215

এসব দুর্ঘটনায় আহত হয়েছেন ৫৩২ জন। নিহতদের মধ্যে ৬৭ জন নারী ও ৫৮ জন শিশু রয়েছে। ডিবিসি টিভি শনিবার (৪ ডিসেম্বর) রোড সেফটি ফাউন্ডেশনের প্রকাশিত এক প্রতিবেদনে এ তথ্য জানানো হয়। সংস্থাটির মাসিক দুর্ঘটনা প্রতিবেদনে এ তথ্য উঠে এসেছে। সাতটি জাতীয় দৈনিক, পাঁচটি অনলাইন নিউজ পোর্টাল এবং ইলেক্ট্রনিক গণমাধ্যমের তথ্যের ভিত্তিতে প্রতিবেদনটি তৈরি করা হয়েছে। […]

The post শুধু নভেম্বরেই ৩৭৯ সড়ক দুর্ঘটনায় প্রাণ গেলো ৪১৩ জনের appeared first on TheBarta.com.

]]>

এসব দুর্ঘটনায় আহত হয়েছেন ৫৩২ জন। নিহতদের মধ্যে ৬৭ জন নারী ও ৫৮ জন শিশু রয়েছে। ডিবিসি টিভি

শনিবার (৪ ডিসেম্বর) রোড সেফটি ফাউন্ডেশনের প্রকাশিত এক প্রতিবেদনে এ তথ্য জানানো হয়। সংস্থাটির মাসিক দুর্ঘটনা প্রতিবেদনে এ তথ্য উঠে এসেছে। সাতটি জাতীয় দৈনিক, পাঁচটি অনলাইন নিউজ পোর্টাল এবং ইলেক্ট্রনিক গণমাধ্যমের তথ্যের ভিত্তিতে প্রতিবেদনটি তৈরি করা হয়েছে।

এসময় সাতটি নৌ-দুর্ঘটনায় নয়জন নিহত এবং পাঁচজন নিখোঁজ রয়েছেন। ১১টি রেলপথ দুর্ঘটনায় ১৩ জন নিহত এবং দুইজন আহত হয়েছেন বলে প্রতিবেদনে উল্লেখ করা হয়। নিউজ ২৪

পরিসংখ্যানে দেখা যায়, নিহতদের মধ্যে মোটরসাইকেল চালক ও আরোহী ১৮৪ জন, বাসযাত্রী ২৩ জন, ট্রাক-পিকআপ-কাভার্ডভ্যান-ট্রাক্টর-ট্রলি যাত্রী ১২ জন, মাইক্রোবাস-প্রাইভেটকার-অ্যাম্বুলেন্স-জিপ যাত্রী ৯ জন (২ দশমিক ১৭ শতাংশ), থ্রি-হুইলার যাত্রী (ইজিবাইক-সিএনজি-অটোরিকশা-অটোভ্যান-মিশুক-টেম্পু-লেগুনা) ৬৬ জন (১৫ দশমিক ৯৮ শতাংশ), স্থানীয়ভাবে তৈরি যানবাহনের যাত্রী (নসিমন-ভটভটি-আলমসাধু-বোরাক-মাহেন্দ্র-টমটম) ১৭ জন এবং প্যাডেল রিকশা-রিকশাভ্যান-বাইসাইকেল আরোহী ছয়জন।

সংস্থাটির পর্যবেক্ষণ ও বিশ্লেষণ বলছে, দুর্ঘটনাগুলোর মধ্যে ১৫৬টি জাতীয় মহাসড়কে, ১৩১টি আঞ্চলিক সড়কে, ৫৩টি গ্রামীণ সড়কে, শহরের সড়কে এবং অন্যান্য স্থানে চারটি। দুর্ঘটনাগুলোর মধ্যে ৮৯টি মুখোমুখি সংঘর্ষ, ১৩৩টি নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে, ৯১টি পথচারীকে চাপা/ধাক্কা দেওয়া, ৫৯টি যানবাহনের পেছনে আঘাত করা এবং সাতটি অন্যান্য কারণে ঘটেছে। জাগোনিউজ ২৪

এতে বলা হয়, ঢাকা বিভাগে সবচেয়ে বেশি দুর্ঘটনা ও প্রাণহানি ঘটেছে। ৮৩টি দুর্ঘটনায় নিহত ১০৪ জন। সবচেয়ে কম বরিশাল বিভাগে। ২২টি দুর্ঘটনায় নিহত ২৪ জন। একক জেলা হিসেবে চট্টগ্রাম জেলায় সবচেয়ে বেশি দুর্ঘটনা ও প্রাণহানি ঘটেছে। ২১টি দুর্ঘটনায় ২৯ জন নিহত হয়েছেন। সবচেয়ে কম লালমনিরহাট জেলায়। দুটি দুর্ঘটনা ঘটলেও কেউ হতাহত হয়নি।

সংস্থাটি বলছে-ত্রুটিপূর্ণ যানবাহন, বেপরোয়া গতি, চালকদের বেপরোয়া মানসিকতা, অদক্ষতা ও শারীরিক-মানসিক অসুস্থতাসহ ১০ কারণে সড়কে দুর্ঘটনা কমছে না।

প্রতিবেদনে আরও বলা হয়, গত অক্টোবর মাসে ৩৪৬টি সড়ক দুর্ঘটনায় ৪০৭ জন নিহত হয়েছিল। গড়ে প্রতিদিন দুর্ঘটনা ঘটেছিল ১১ দশমিক ১৬টি এবং মারা গেছেন ১৩ জন। নভেম্বর মাসে ৩৭৯টি সড়ক দুর্ঘটনায় নিহত হয়েছেন ৪১৩ জন। গড়ে প্রতিদিন দুর্ঘটনা ঘটেছে ১২ দশমিক ৬৩টি এবং নিহত হয়েছেন ১৩ জন।

সংস্থাটির নির্বাহী পরিচালক সাইদুর রহমান বলেন, দুর্ঘটনা ও প্রাণহানির হার ঊর্ধ্বমুখী হলেও এটা নিয়ন্ত্রণে সরকারের তেমন কোনো উদ্যোগ দৃশ্যমান নয়। সড়ক পরিবহন আইন-২০১৮ বাস্তবায়নে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের মধ্যে কোনো আগ্রহ দেখা যাচ্ছে না। সড়ক দুর্ঘটনা ঘটছে মূলত সড়ক পরিবহন খাতের নৈরাজ্য ও অব্যবস্থাপনার কারণে। এ অবস্থার উন্নয়নে সরকারের রাজনৈতিক সদিচ্ছার ঘাটতি রয়েছে।আস

The post শুধু নভেম্বরেই ৩৭৯ সড়ক দুর্ঘটনায় প্রাণ গেলো ৪১৩ জনের appeared first on TheBarta.com.

]]>
https://thebarta.com/bangladesh/%e0%a6%b6%e0%a7%81%e0%a6%a7%e0%a7%81-%e0%a6%a8%e0%a6%ad%e0%a7%87%e0%a6%ae%e0%a7%8d%e0%a6%ac%e0%a6%b0%e0%a7%87%e0%a6%87-%e0%a7%a9%e0%a7%ad%e0%a7%af-%e0%a6%b8%e0%a6%a1%e0%a6%bc%e0%a6%95-%e0%a6%a6/feed/ 0
গেমিং ল্যাপটপ কিনতে শিশুকে অপহরণ-হত্যা! https://thebarta.com/bangladesh/%e0%a6%97%e0%a7%87%e0%a6%ae%e0%a6%bf%e0%a6%82-%e0%a6%b2%e0%a7%8d%e0%a6%af%e0%a6%be%e0%a6%aa%e0%a6%9f%e0%a6%aa-%e0%a6%95%e0%a6%bf%e0%a6%a8%e0%a6%a4%e0%a7%87-%e0%a6%b6%e0%a6%bf%e0%a6%b6%e0%a7%81/ https://thebarta.com/bangladesh/%e0%a6%97%e0%a7%87%e0%a6%ae%e0%a6%bf%e0%a6%82-%e0%a6%b2%e0%a7%8d%e0%a6%af%e0%a6%be%e0%a6%aa%e0%a6%9f%e0%a6%aa-%e0%a6%95%e0%a6%bf%e0%a6%a8%e0%a6%a4%e0%a7%87-%e0%a6%b6%e0%a6%bf%e0%a6%b6%e0%a7%81/#respond Sat, 04 Dec 2021 13:15:57 +0000 https://thebarta.com/?p=140212

নরসিংদীর রায়পুরায় মুক্তিপণের টাকায় গেমিং ল্যাপটপ কিনতেই শিশু ইয়ামিনকে (৮) অপহরণ করে হত্যা করা হয়েছে। এ ঘটনায় জড়িত চার অপহরণকারীকে গ্রেপ্তার করেছে গোয়েন্দা পুলিশ। শনিবার (০৪ ডিসেম্বর) দুপুরে জেলা পুলিশ সুপারের কার্যালয়ে সংবাদ সম্মেলনে নরসিংদীর অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (অপরাধ) সাহেব আলী পাঠান এ তথ্য জানান। এর আগে শুক্রবার রাতে রায়পুরার উত্তর বাখরনগর ও পিরিজকান্দি গ্রামে […]

The post গেমিং ল্যাপটপ কিনতে শিশুকে অপহরণ-হত্যা! appeared first on TheBarta.com.

]]>

নরসিংদীর রায়পুরায় মুক্তিপণের টাকায় গেমিং ল্যাপটপ কিনতেই শিশু ইয়ামিনকে (৮) অপহরণ করে হত্যা করা হয়েছে। এ ঘটনায় জড়িত চার অপহরণকারীকে গ্রেপ্তার করেছে গোয়েন্দা পুলিশ।

শনিবার (০৪ ডিসেম্বর) দুপুরে জেলা পুলিশ সুপারের কার্যালয়ে সংবাদ সম্মেলনে নরসিংদীর অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (অপরাধ) সাহেব আলী পাঠান এ তথ্য জানান। এর আগে শুক্রবার রাতে রায়পুরার উত্তর বাখরনগর ও পিরিজকান্দি গ্রামে অভিযান চালিয়ে অপহরণকারীদের গ্রেপ্তার করা হয়।

গ্রেপ্তাররা হলেন- উত্তর বাখরনগর গ্রামের নূরুল হকের ছেলে সিয়াম উদ্দিন (১৯), মৃত আসাদ মিয়ার ছেলে সুজন মিয়া (২৪), কাঞ্চন মিয়া (৫৪) ও পিরিজকন্দি গ্রামের কবির মিয়ার ছেলে রাসেল মিয়া (১৮)।

নিহত ইয়ামিন একই গ্রামের মালয়েশিয়া প্রবাসী জামাল মিয়ার ছেলে এবং বাখরনগর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে দ্বিতীয় শ্রেণির ছাত্র।

পুলিশ জানায়, গত ২৮ নভেম্বর সকালে ইয়ামিনের মা সামসুন্নাহার বেগম ইউপি নির্বাচনে ভোট দিতে যাওয়ার সময় ছেলেকে বাড়িতে রেখে যান। দুপুরে বাড়িতে ফেরার পর থেকে ছেলের কোনো খোঁজ পাচ্ছিলেন না তিনি। পরে রাত সাড়ে ৮টার দিকে অপরিচিত একটি নম্বর থেকে ফোন দিয়ে বলা হয়, ইয়ামিন তাদের হেফাজতে আছে। ১০ লাখ টাকা মুক্তিপণ না পেলে তাকে হত্যা করা হবে।

শিশুটির মা এত টাকা দিতে পারবেন না জানালে অপহরণকারীরা পাঁচ লাখে ছেড়ে দিতে রাজি হন। পরে বিকাশে এক লাখ টাকা পাঠানো হয়। টাকা পাওয়ার পর অপহরণকারীদের ফোন বন্ধ পাওয়া যায়।

এ ঘটনায় বুধবার রাতে অজ্ঞাতনামা আসামিদের বিরুদ্ধে রায়পুরা থানায় একটি অপহরণ মামলা দায়ের করেন ইয়ামিনের মা। এরপরই ইয়ামিনের সন্ধানে নামে পুলিশ। এরই পরিপ্রেক্ষিতে শুক্রবার (০৩ ডিসেম্বর) সকালের দিকে বাখরনগর গ্রামের ডোবা থেকে একটি মরদেহ উদ্ধার করা হয়, যা শিশু ইয়ামিনের বলে শনাক্ত করেন তার স্বজনরা।

পুলিশ আরও জানায়, মরদেহ উদ্ধারের পরে আসামিদের গ্রেপ্তারে অভিযানে নামে গোয়েন্দা পুলিশ। শুক্রবার রাতে বাখরনগর গ্রাম থেকে সিয়াম ও পিরিজকান্দি গ্রাম থেকে রাসেলকে গ্রেপ্তার করা হয়। এ সময় উদ্ধার করা হয় হত্যাকাণ্ডে ব্যবহৃত স্কচটেপ, বালিশ ও অপহরণে ব্যবহৃত মোবাইল এবং সিম।

জিজ্ঞাসাবাদে আসামিরা জানান, গেমিং ল্যাপটপ কিনে ইউটিউব থেকে টাকা উর্পাজনের জন্য শিশু ইয়ামিনকে অপহরণের পরিকল্পনা করা হয়। রোববার ভোটের দিন তারা দুজন খেলার ছলে ইয়ামিনকে সিয়ামের বাড়ির নির্জন রুমে নিয়ে যান। সেখানে তাকে মুখ, হাত-পা বেঁধে বস্তায় ভরে রাখে।

পরে তারা সিআইডি ও ক্রাইম পেট্রোল থেকে উদ্বুদ্ধ হয়ে অ্যাপস ব্যবহার করে ভিপিএনের মাধ্যমে ইয়ামিনের মাকে ফোন করে ১০ লাখ টাকা মুক্তিপণ চান। মুক্তিপণের টাকা না পেয়ে অপহরণের দিনই সিয়াম ও রাসেল বালিশ চাপা দিয়ে ইয়ামিনকে হত্যা করেন। পরে মরদেহ বস্তায় ভরে গোয়ালঘরে রাখা হয় এবং ঘটনার চারদিন পর তা ডোবায় ফেলে আসেন। তাদের দেওয়া তথ্যের ভিত্তিতে পরবর্তীকালে উত্তর বাখরনগর গ্রাম থেকে সুজন ও কাঞ্চনকে গ্রেপ্তার করে গোয়েন্দা পুলিশ।

নরসিংদীর অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (অপরাধ) সাহেব আলী পাঠান বলেন, আমরা মরদেহ উদ্ধারের পরই অভিযানে নেমেছি। গোয়েন্দা তথ্যের ভিত্তিতে অভিযান চালিয়ে আসামিদের গ্রেপ্তার করা হয়েছে। সিয়াম ও রাসেল হত্যাকাণ্ডের সঙ্গে সংশ্লিষ্টতা স্বীকার করেছে। তাদের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা নেওয়া হচ্ছে বলে জানান তিনি।

উৎসঃ   বাংলানিউজ

The post গেমিং ল্যাপটপ কিনতে শিশুকে অপহরণ-হত্যা! appeared first on TheBarta.com.

]]>
https://thebarta.com/bangladesh/%e0%a6%97%e0%a7%87%e0%a6%ae%e0%a6%bf%e0%a6%82-%e0%a6%b2%e0%a7%8d%e0%a6%af%e0%a6%be%e0%a6%aa%e0%a6%9f%e0%a6%aa-%e0%a6%95%e0%a6%bf%e0%a6%a8%e0%a6%a4%e0%a7%87-%e0%a6%b6%e0%a6%bf%e0%a6%b6%e0%a7%81/feed/ 0
‘ওমিক্রন’ থেকে বাঁচাতে স্ত্রী ও দুই সন্তানকে হত্যা করলেন চিকিৎসক https://thebarta.com/international/%e0%a6%93%e0%a6%ae%e0%a6%bf%e0%a6%95%e0%a7%8d%e0%a6%b0%e0%a6%a8-%e0%a6%a5%e0%a7%87%e0%a6%95%e0%a7%87-%e0%a6%ac%e0%a6%be%e0%a6%81%e0%a6%9a%e0%a6%be%e0%a6%a4%e0%a7%87-%e0%a6%b8/ https://thebarta.com/international/%e0%a6%93%e0%a6%ae%e0%a6%bf%e0%a6%95%e0%a7%8d%e0%a6%b0%e0%a6%a8-%e0%a6%a5%e0%a7%87%e0%a6%95%e0%a7%87-%e0%a6%ac%e0%a6%be%e0%a6%81%e0%a6%9a%e0%a6%be%e0%a6%a4%e0%a7%87-%e0%a6%b8/#respond Sat, 04 Dec 2021 13:12:49 +0000 https://thebarta.com/?p=140209

মহামারী করোনাভাইরাসের নতুন ধরণ ‘ওমিক্রন’ আতঙ্কে নিজের স্ত্রী ও দুই সন্তানকে হত্যা করেছেন ভারতের এক চিকিৎসক। এরপর নিজের ভাইকে হোয়াটসঅ্যাপে বার্তাও পাঠিয়েছেন তিনি। সম্প্রতি এমন ঘটনা ঘটেছে উত্তর প্রদেশের কানপুরে। ভারতীয় সংবাদমাধ্যমে বলা হয়েছে, ওই চিকিৎসক তার নিজের স্ত্রী ও ছেলে-মেয়েকে হত্যা করে ভাইকে হোয়াটসঅ্যাপে বার্তা পাঠান। সেখানে লেখা ছিল, লাশ গুনতে গুনতে আমি ক্লান্ত। […]

The post ‘ওমিক্রন’ থেকে বাঁচাতে স্ত্রী ও দুই সন্তানকে হত্যা করলেন চিকিৎসক appeared first on TheBarta.com.

]]>

মহামারী করোনাভাইরাসের নতুন ধরণ ‘ওমিক্রন’ আতঙ্কে নিজের স্ত্রী ও দুই সন্তানকে হত্যা করেছেন ভারতের এক চিকিৎসক। এরপর নিজের ভাইকে হোয়াটসঅ্যাপে বার্তাও পাঠিয়েছেন তিনি। সম্প্রতি এমন ঘটনা ঘটেছে উত্তর প্রদেশের কানপুরে।

ভারতীয় সংবাদমাধ্যমে বলা হয়েছে, ওই চিকিৎসক তার নিজের স্ত্রী ও ছেলে-মেয়েকে হত্যা করে ভাইকে হোয়াটসঅ্যাপে বার্তা পাঠান। সেখানে লেখা ছিল, লাশ গুনতে গুনতে আমি ক্লান্ত। ওমিক্রনের সংক্রমণ থেকে কেউ রেহাই পাবে না। এমন পরিস্থিতির যাতে শিকার না হতে হয়, তাই ওদের মুক্তি দিচ্ছি।

হত্যাকারী চিকিৎসকের ভাই পুলিশকে জানিয়েছেন, এই বার্তা পাওয়ার সাথে সাথেই তিনি ছুটে যান তাদের বাড়িতে। তবে ততক্ষণে সেখান থেকে বের হয়ে গিয়েছিলেন সেই চিকিৎসক। পরে একটি ঘরে তার স্ত্রীর লাশ এবং অন্যঘরে ছেলে-মেয়ের লাশ পড়ে থাকতে দেখেই পুলিশে খবর দেন হত্যাকারীর ভাই।

এ বিষয়ে পুলিশ জানায়, অনেকদিন থেকেই অবসাদে ভুগছিলেন সেই চিকিৎসক। নিজের স্ত্রীকে শ্বাসরোধ করে হত্যা করেছেন তিনি। পাশাপাশি দুই সন্তানের মাথায় হাতুড়ি দিয়ে পিটিয়ে তাদের খুন করেছেন। এরপরই গা ঢাকা দিয়েছেন এই চিকিৎসক।

তার ঘর থেকে একটি ডায়েরি উদ্ধার করা হয়েছে। সেখানে তিনি খুনের কথা লিখেছেন। শুধু তাই নয়, ওমিক্রনের কথাও সেখানে উল্লেখ করেছেন তিনি। তদন্তকারীদের দাবি, ডায়েরিতে এটাও স্পষ্ট করে লেখা, এখন থেকে আর লাশ গুনতে হবে না। করোনা সবাইকেই মারবে।

তবে এই ঘটনার পেছনে শুধুমাত্র করোনা দায়ী নাকি অন্য কোনো কারণ আছে, তা খুঁজে বের করার চেষ্টা করছে পুলিশ। সেই চিকিৎসককেও গ্রেফতারের চেষ্টা চলছে।

সূত্র : আনন্দবাজার পত্রিকা

The post ‘ওমিক্রন’ থেকে বাঁচাতে স্ত্রী ও দুই সন্তানকে হত্যা করলেন চিকিৎসক appeared first on TheBarta.com.

]]>
https://thebarta.com/international/%e0%a6%93%e0%a6%ae%e0%a6%bf%e0%a6%95%e0%a7%8d%e0%a6%b0%e0%a6%a8-%e0%a6%a5%e0%a7%87%e0%a6%95%e0%a7%87-%e0%a6%ac%e0%a6%be%e0%a6%81%e0%a6%9a%e0%a6%be%e0%a6%a4%e0%a7%87-%e0%a6%b8/feed/ 0