পুলিশ দেখলেই নিজের জিহ্বা কাটত জাহাঙ্গীর

0 ১৬২

চট্টগ্রামের শীর্ষ ছিনতাইকারী মো. জাহাঙ্গীর ওরফে গাল কাটা জাহাঙ্গীরকে পুলিশ ৫ সহযোগীসহ গ্রেপ্তার করেছে। তাদের কাছ থেকে দুটি ছোরাও উদ্ধার করা হয়েছে। কোরবানি সামনে রেখে তারা ছিনতাই করতে জড়ো হয়েছিলেন বলে প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে পুলিশকে জানিয়েছেন।

জাহাঙ্গীর পুলিশ দেখলেই ব্লেড দিয়ে তার জিহ্বা কেটে ফেলার কারণে তিনি গাল কাটা জাহাঙ্গীর নামে পরিচিতি পান। গ্রেপ্তার অপর ৪ জন হলেন ইমন শরীফ ওরফে ইমন (১৯), মো. সাইফুল ওরফে সুমন (২৪), মো. মনির (২১), নজরুল আহমেদ সাগর (২০) এবং সাইদুর রহমান ইবু (২২)।

ডবলমুরিং থানার ওসি মোহাম্মদ মহসীন বলেন, গাল কাটা জাহাঙ্গীর একজন শীর্ষ ছিনতাইকারী। তিনি প্রায় কাজই নিজে না করে অন্য সহযোগীদের দিয়ে করান। তাই তার বিরুদ্ধে বিভিন্ন থানায় মাত্র চারটি মামলা আছে। তিনি খুবই ধূর্ত। পুলিশ দেখলেই ব্লেড দিয়ে নিজের জিহ্বা কেটে ফেলত, যাতে তাকে আহত মনে করে পুলিশ না ধরে। তিনি বলেন, গোপন সংবাদের ভিত্তিতে গতকাল (মঙ্গলবার) রাত সাড়ে ১০টার দিকে আগ্রাবাদ সিএন্ডএফ টাওয়ারের পাশে

বাংলাদেশ টেলিকমিউনিকেশনস কোম্পানি লিমিটেড অফিসের প্রধান ফটক থেকে ইমন, সুমন ও মনিরকে গ্রেপ্তার করা হয়। পরে তাদের তথ্যের ভিত্তিতে গ্রেপ্তার করা হয় দলনেতা জাহাঙ্গীরসহ আরও দুজনকে। এ সময় জাহাঙ্গীর পুলিশ থেকে বাঁচতে ব্লেড দিয়ে তার জিহ্বা কেটে ফেলেন। পরে তাদের দেহ তল্লাশি করে দুটি ছোরা উদ্ধার করা হয়।

প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে জাহাঙ্গীর জানায়, কোরবানি উপলক্ষে তারা জড়ো হয়েছিলেন। গরুর বেপারি ও গরু ক্রেতাদের টার্গেট করেই তারা পরিকল্পনা করছিলেন। তাদের দলের মূল সদস্য ৫ জন হলেও কোরবানি উপলক্ষে চাঁদপুর থেকে সুমনকেও দলে ভেড়ানো হয়।

গ্রেপ্তার ইমন শরীফের বিরুদ্ধে ৫টি, সাইফুলের বিরুদ্ধে ২টি, নজরুল আহমেদ সাগরের বিরুদ্ধে ৪টি এবং সাইদুর রহমান ইবুর বিরুদ্ধে থানায় ১টি মামলা রয়েছে।

উৎসঃ   dainikamadershomoy
Comments
Loading...