কী পাবে কী হারাবে বাংলাদেশ

0 ৯৯

এটি এখন জানা তথ্য যে, উন্নয়নশীল দেশে উত্তরণ হচ্ছে বাংলাদেশের। শুক্রবার জাতিসংঘের কমিটি ফর ডেভেলপমেন্ট পলিসি (সিডিপি)-এর ত্রিবার্ষিক পর্যালোচনা সভায় এ বিষয়ে চূড়ান্ত সুপারিশ করা হয়েছে। এর ফলে পাঁচ বছর প্রস্তুতিকালীন সময় কাটানোর পর ২০২৬ সালে স্বল্পোন্নত দেশ বা এলডিসি থেকে বেরিয়ে যাবে বাংলাদেশ। স্বাধীনতার ৫০তম বছরে এটি একটি অনন্য অর্জন। সাধারণ মানুষের কৌতূহল অন্য জায়গায়। তারা জানতে চাইছে-এর ফলে কী পাবে বাংলাদেশ? আর কীই-বা হারাবে? সরকারের সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তা আর বিশেষজ্ঞদের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, এলডিসি তালিকা থেকে বের হয়ে গেলে দেশের ভাবমূর্তি উজ্জ্বল হবে। সারা বিশ্বে একটি ইতিবাচক দৃষ্টিভঙ্গি তৈরি হবে। কিন্তু এ প্রক্রিয়ায় নির্দিষ্টভাবে বাংলাদেশের লাভ বা ক্ষতি কতটুকু হবে, সে বিষয়ে এখনো কোনো চূড়ান্ত হিসাব নেই সরকারের কাছে।

সরকারের সংশ্লিষ্টরা জানান, ২০১৯ সালে সাধারণ অর্থনীতি বিভাগের (জিইডি) ‘বাংলাদেশ প্রেক্ষিত পরিকল্পনা ২০২১-৪১’ শীর্ষক একটি প্রতিবেদন তৈরি করেছিল। ওই প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, এলডিসি থেকে বেরিয়ে গেলে বাংলাদেশের মোট রপ্তানি বার্ষিক ১১ শতাংশ হারে কমতে পারে। এতে প্রায় ৬ বিলিয়ন মার্কিন ডলার বা ৫১ হাজার কোটি টাকার বেশি ক্ষতি হতে পারে। তবে এটি অনুমাননির্ভর হিসাব।

কী পাবে বাংলাদেশ : সংশ্লিষ্টরা বলছেন, স্বাধীনতার পর তলাবিহীন ঝুড়ি হিসেবে চিহ্নিত একটি রাষ্ট্র ৫০ বছরের মধ্যে সেই অপবাদ ঘুচিয়ে উন্নয়নশীলে উত্তরণ ঘটছে-বহির্বিশ্বে এটিই সবচেয়ে বড় অর্জন। এর ফলে বাংলাদেশের মর্যদা বৃদ্ধি পাবে। বিদেশি বিনিয়োগকারীদের মধ্যে আস্থা বাড়বে। বহুজাতিক কোম্পানিগুলো বাংলাদেশে বিনিয়োগে এগিয়ে আসবে। বিনিয়োগ বাড়ার কারণে কর্মসংস্থান বৃদ্ধি পাবে। ফলে মানুষের মাথাপিছু আয় বাড়বে। আয় বাড়ার কারণে সরকারের রাজস্ব আয়ও বাড়বে। এর ফলে বিভিন্ন খাতে সরকারের বিনিয়োগ বাড়বে। আবার এলডিসি থাকার কারণে বহির্বিশ্বে ঝুঁকিপূর্ণ দেশ হিসেবে বিবেচনা করা হয়। ফলে বাণিজ্যিক ঋণ নেওয়ার ক্ষেত্রে জামানত ও সুদের হার বেশি পড়ে। উন্নয়নশীলে উত্তরণের কারণে রিস্ক ফ্যাক্টর কমে যাবে। এতে করে বাণিজ্যিক ঋণের সুদের হার কমবে। বেসরকারি খাতে অর্থায়ন সুবিধা বাড়বে। এটিও বিনিয়োগ বাড়াতে সহায়তা করবে। আবার সরকারি-বেসরকারি বিনিয়োগ বৃদ্ধির ফলে শিক্ষা, স্বাস্থ্যসহ মানব সম্পদ সূচকে আরও উন্নয়ন ঘটবে। নতুন বিনিয়োগের লক্ষ্যে সরকারের অবকাঠামো উন্নয়ন হবে। এ ছাড়া প্রতিযোগিতায় টিকে থাকতে আমদানি-রপ্তানি নীতিসহ সরকারের কর নীতিতে পরিবর্তন আসবে। এতে করে বহির্বাণিজ্যে সক্ষমতা বাড়বে বাংলাদেশের। আবার কারখানা ও শ্রমিকের দক্ষতা বৃদ্ধির কারণে উৎপাদনশীলতা বৃদ্ধি পাবে। পণ্য রপ্তানিতে দরকষাকষির সুযোগ বাড়বে বাংলাদেশের।

কী হারাবে বাংলাদেশ : ২০২৬ সালে এলডিসি থেকে বেরিয়ে গেলে ভারত ও চীন ছাড়াও উন্নত দেশগুলোতে যে বাণিজ্য সুবিধা পাচ্ছে, সেটি আর পাওয়া যাবে না; তিন বছর পর অর্থাৎ ২০২৯ সালের পর ইউরোপিয়ান ইউনিয়ন (ইইউ)-এ শুল্কমুক্ত বাজার সুবিধা হারাবে; এলডিসি হিসেবে মেধাস্বত্ব, পেটেন্ট, তথ্য প্রযুক্তি ও সেবা খাতে বিশেষ সুবিধা পাচ্ছে বাংলাদেশ। উন্নয়নশীলে উত্তরণের পর বিনামূল্যে এসব প্রযুক্তি বা সেবা মিলবে না; ফার্মাসিউটিক্যালস খাতে এলডিসি হিসেবে বাংলাদেশ পেটেন্ট লাইসেন্স ছাড়াই ওষুধ উৎপাদন করতে পারে। ২০৩৩ সালের পর এই সুবিধা আর পাওয়া যাবে না; স্বল্পোন্নত দেশ হিসেবে বাংলাদেশ বিভিন্ন দেশের অনুদান ও সহজশর্তে ঋণ সহায়তা পাচ্ছে। বিশেষ করে জলবায়ু তহবিল থেকে বিশেষ বরাদ্দ রয়েছে। ২০২৬ সালের পর এসব অনুদান বা সহায়তা মিলবে না; স্বল্পোন্নত দেশ হিসেবে বাংলাদেশের শিক্ষা, স্বাস্থ্যসহ মানবসম্পদ উন্নয়নে জাতিসংঘসহ বিভিন্ন দেশ ও আন্তর্জাতিক সংস্থাগুলোর বিশেষ সহায়তা পাওয়া যায়। এসব সহায়তা আর ২০২৬ সালের পর পাওয়া যাবে না; এনজিওগুলোও বর্তমানে যেসব খাতে অনুদান পাচ্ছে তা আর পাবে না; এমন কি বর্তমানে যে রেয়াতি সুদে অর্থাৎ সহজ শর্তে বিশ্বব্যাংক, এডিবি থেকে ঋণ মিলছে সেটিও আর মিলবে না। তাদের ঋণের সুদের হার বেড়ে যাবে; এ ছাড়া এলডিসি হিসেবে বাংলাদেশ কৃষি খাতে ভর্তুকি দিচ্ছে। রপ্তানি খাতে দিচ্ছে নানা ধরনের প্রণোদনা সুবিধা। এমন কী রেমিট্যান্স আয়েও নগদ সহায়তা দিচ্ছে। এলডিসি থেকে বেরিয়ে গেলে এসব ভর্তুকি ও প্রণোদনা দেওয়ার ক্ষেত্রে বিধিনিষেধ আসবে।

বেসরকারি গবেষণা সংস্থা সেন্টার ফর পলিসি ডায়ালগের গবেষণা পরিচালক খন্দকার গোলাম মোয়াজ্জেম বলেন, এই পরিপ্রেক্ষিতে রপ্তানি পণ্যের বহুমুখীকরণের পাশাপাশি উৎপাদনশীলতা নির্ভর অর্থনীতির দিকে যেতে হবে। প্রতিযোগিতার সক্ষমতা অর্জনের জন্য আমাদের প্রযুক্তির আধুনিকায়ন, দক্ষতা ও উৎপাদনশীলতা বাড়ানোর দিকে গুরুত্ব দিতে হবে। সেই সঙ্গে অবকাঠামোসহ ব্যবসায় পরিবেশ সক্ষমতা, বন্দর সক্ষমতাও বাড়াতে হবে। যাতে শুল্কমুক্ত সুবিধা না পেলেও পণ্যের দাম ঠিক রেখে প্রতিযোগিতা সক্ষমতা বজায় রাখা যায়।

খন্দকার গোলাম মোয়াজ্জেম বলেন, স্বল্পোন্নত থেকে উন্নয়নশীল দেশের মর্যাদা পাওয়ায় বাংলাদেশের সামনে যেমন নতুন সম্ভাবনা ও সুযোগ তৈরি হবে তেমনি নতুন ধরনের চ্যালেঞ্জের সম্মুখীন হতে হবে। বলা হচ্ছে, রপ্তানি খাতে বিশেষ করে তৈরি পোশাক রপ্তানিতে বড় ধরনের ঝুঁকি তৈরি হবে। তবে আমরা যুক্তরাষ্ট্রে শুল্ক দিয়েই তৈরি পোশাক রপ্তানি করছি। একক দেশ হিসেবে বাংলাদেশের রপ্তানির সবচেয়ে বড় বাজার এখন যুক্তরাষ্ট্র। ফলে উত্তরণের পর শুল্ক সুবিধা না পেলেই দেশের রপ্তানি ঝুঁকিতে পড়বে এমন ভাবার কারণ নেই। সিপিডির এই গবেষক বলেন, এলডিসি থেকে বেরিয়ে যাওয়ার কারণে দেশের আমদানি-রপ্তানি বাণিজ্য বৃদ্ধি পাবে। উদ্যোক্তারা পণ্যের বৈচিত্র্যকরণের পাশাপাশি কারখানা ও শ্রমিকের দক্ষতা বাড়াতে বিনিয়োগ করবেন। প্রতিযোগিতায় টিকে থাকতে নতুন বাজারে নতুন পণ্য রপ্তানির সুযোগ তৈরি করবেন। চ্যালেঞ্জের বিপরীতে এটি এক নতুন সম্ভাবনার দরজা খুলে দেবে।

উৎসঃ   বিডি-প্রতিদিন
Comments
Loading...