ধর্ষণ এবং পুনরায় ৭ জন মিলে বর্বর গনধর্ষণ !!

0 ১৮

image_28952_0লালমনিরহাট সদরে গোকুন্ডাইউনিয়নে মধ্যযুগীয় কায়দায় এক গৃহবধুকে ধর্ষনের পর মারপিটসহ মাথার চুল কেঁটে দেওয়ায় অপরাধে পুলিশের হাতে একজন আটক হয়েছে।

জেলার সদর থানা এলাকার গোকুন্ডা ইউনিয়নের মোস্তফি গ্রামের দিনমজুর সাইদুলের স্ত্রী (২৫)কে একইগ্রামের প্রতিবেশী মোতাব্বেল অঅলীর পুত্র আনিছুরের কুদৃষ্টি পরে ঐ বধুর উপর। একপর্যায়ে উত্যক্ত করতে থাকে আনিছ । এরই জের ধরে অসহায় গৃহবধু তার নিজ সম্মান রক্ষার জন্য ধর্ষক আনিছকে জুতাপেটা করে।

সেই হয়েছে বধুটির কাল গতরবিবার রাতে স্বামী সাইদুলের অনুপস্থিতিতে প্রতিবেশী আনিছ ২৫এর শয়ন ঘরে প্রবেশ করে তার মুখ চেপে তাকে ধর্ষন করে। পরে তার চিৎকারে বাড়ীর অনান্যরা সহ প্রতিবেশী কয়েকজন ঘটনা স্থলে আসলে আনিছ পালিয়ে যায়। পরে লোকজন যার যার মতো চলে গেলে পূণরায় আনিছ ও তার দলবল সহ ৭জনের একটি সংঘবদ্ধদল ঐ ধর্ষিতা বধুকে তুলে নিয়ে যায় এবং তাকে ধর্ষন করেই শুধু ক্ষান্ত হয়নি তারা। সমাজের সেই মধ্যযুগীয় কায়দায় চালায় তার উপর বর্বর নির্যাতন।কেটেঁ দেয়া হয় তার মাথারচুল। অসহায় পরিবারটি পরে সদর থানায় আইনের আশ্রয় নিয়ে ৭জনকে অভিযুক্তকরে এ সংক্রান্ত একটি মামলা দায়ের করলে । পুলিশ কয়েকঘন্টার মধ্যে এস আই আসাদুজ্জামানের নেতৃত্বে একদল পুলিশ সদস্য মামলার ৫নং অভিযুক্ত হাবিবকে আটকরে কোর্টে সোপর্দ করে। এঘটনার সত্যতা স্বীকার করে সদর থানার ওসি তদন্ত মন্সুর জানান, বাকী অভিযুক্তদেরকে আটকের অভিযান চলছে। ভিকটিমের উন্নত চিকিৎসার জন্য লালমনিরহাট সদর হাসপাতালে গাইনি বিভাগের ৭৭নং বেডে ভর্তিকরানো হয়েছে।

Comments
Loading...