পরকীয়ায় প্রবাসীর স্ত্রী : ভিডিও ধারণ, গণধর্ষণ অতঃপর খুন

0

downloadশরীয়তপুর: পরকীয়া প্রেমের ফাঁদে ফেলে শরীয়তপুর সদর উপজেলার বালুচরা গ্রামে প্রবাসীর স্ত্রীকে গণধর্ষণের পর হত্যা করেছে পাষণ্ড এক প্রেমিক। হত্যার ছয় দিন পর শুক্রবার ভোরে ওই নারীর অর্ধগলিত লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ। এ ঘটনায় খুনের মূলহোতাসহ তিন জনকে আটক করেছে পুলিশ।

নিহতের ভাসুর আবুল কাসেম মোল্যা জানান, তার ছোট ভাইয়ের স্ত্রী সামছুন্নাহার গত ১৭ আগস্ট শ্বশুরবাড়ি থেকে নিখোঁজ হয়। এ ঘটনায় পালং থানায় একটি সাধারণ ডায়েরি করেন। বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় সন্দেহজনক ভাবে ভেদরগঞ্জ উপজেলার ছয়গাও এলাকা থেকে মধ্য চরোসুন্দি গ্রামের  রেজাউল করীম সুজনকে আটক করে পুলিশ। তার স্বীকারোক্তি অনুযায়ী  পুলিশ ছয় দিন পর  শুক্রবার  ভোরে সদর উপজেলার ধানুকা বিলের ডোবা থেকে অর্ধগলিত লাশ উদ্ধার করে। পরে সাইফুল ইসলাম ও দুলাল নামে আরো ২ জনকে আটক করা হয়।

তিনি আরো জানান, নিহতের যৌনাঙ্গসহ শরীরের বিভিন্ন স্থানে ধারালো অস্ত্রের আঘাতের চিহ্ন রয়েছে।

গ্রেপ্তার হওয়া প্রেমিক রেজাউল করীম সুজন খুনের কথা স্বীকার করে বলেছেন, সামসুন্নাহার তানু’র সাথে বিয়ের আগে থেকেই তার প্রেমের সম্পর্ক ছিল। তানুর বাবা-মা তার কাছে বিয়ে না দিয়ে তিন বছর আগে দুবাই প্রবাসী ইছহাক মোল্যার কাছে বিয়ে দেয়। বিয়ের পর তার স্বামী দুবাই চলে যায়। এরপর থেকে তারা পরকীয়ায় জড়িয়ে পড়েন বলে জানান রেজাউল।

পুলিশি জিজ্ঞাসাবাদে রেজাউল জানান, তানুর আপত্তিকর ভিডিওচিত্র মোবাইলে ধারন করে ব্লাকমেল করে রেজাউল। ভিডিওটি প্রবাসী স্বামীর কাছে পাঠানোর ভয় দেখিয়ে তানুর কাছ থেকে একলাখ টাকা হাতিয়ে নেয় রেজাউল।

ঘটনার দিন বিকালে বিয়ের প্রলোভন দেখিয়ে রেজাউল ও তার দুই বন্ধু সাইফুল ইসলাম ও দুলাল তানুকে শ্বশুরবাড়ি থেকে নিয়ে মনোহর বাজারে সিনেমা দেখে। 

এরপর ধানুকা এলাকায় একটি বাসায় নিয়ে তানুকে গণধর্ষণের পর গলায় ফাঁস দিয়ে হত্যা করে। লাশের গায়ে ১০টি ইট বেঁধে ধানুকা বিলের একটি ডোবায় কচুরিপানার নিচে লুকিয়ে রাখে তারা। পালং মডেল থানার ওসি তদন্ত খন্দকার মো. ফরিদুল হক বলেন, ধর্ষণ ও হত্যাকাণ্ডের ঘটনায় তিনজনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। এ ঘটনায় একটি মামলার প্রস্তুতি চলছে।

Comments
Loading...