ফেসবুকে প্রেম, সাক্ষাতেই ধর্ষণ!

0 ১১

jadavpu_69_0ফেসবুকে পরিচয়ের সূত্র ধরে প্রেমের পর ভারতে প্রখম সাক্ষাতেই এক তরুণী ধর্ষণের শিকার হয়েছেন বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। দেশটির জাতীয় দৈনিক সংবাদ প্রতিদিন মঙ্গলবার এক প্রতিবেদনে জানিয়েছে, পেশা থ্রি-ডি অ্যানিমেশন তৈরি। নেশা, সোশ্যাল নেটওয়ার্কিং সাইটে তরুণীদের সঙ্গে আলাপ জমানো। সেই আলাপচারিতা থেকে তাদের নিজের প্রতি আকর্ষিত করে প্রেমে ফেলার ফাঁদ তৈরি করা।

সুযোগ বুঝে সেই তরুণীদের বাড়িতে ডেকে নিয়ে এসে শারীরিক সম্পর্ক তৈরি করা। মোবাইলে সেসব ছবি ও ভিডিও তুলে রেখে পরে তাদেরকেই ব্ল্যাকমেইল করে জাল বিস্তার। কিন্তু পাকেচক্রে সেই জলেই জড়িয়ে পড়ল পূর্ব মেদিনীপুরের খাঁজাচকের শুভদীপ পাল (২২)।

প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, নিজের ফাঁদে নিজেই ধরা পড়েছে ওই ‘গুণধর’। সোমবার এক কলেজ ছাত্রীর অভিযোগের ভিত্তিতে গড়ফা থানার পুলিশ পালবাজারের একটি মেস থেকে গ্রেফতার করেছে তাকে।

এতে বলা হয়েছে, পুলিশ সূত্রে খবর, ২০১৩ সালের শেষদিকে শুভদীপের সঙ্গে নেতাজিনগরের বাসিন্দা ওই তরুণীর আলাপ হয় ফেসবুকে। সন্তোষ টডলার ইনস্টিটিউটে থ্রি-ডি অ্যানিমেশনের কাজ করে সে। অন্যদিকে নেতাজিনগর কলেজের প্রথম বর্ষের ছাত্রী ওই তরুণী। তার অভিযোগ, সুদর্শন যুবক শুভদীপের প্রেমে পড়ে যান তিনি। শুভদীপের কথার ফাঁদে পড়ে ধীরে ধীরে তার প্রতি আকৃষ্ট হতে শুরু করেন।

সোমবারই প্রথমবার সামনাসামনি দেখা করেন দু’জনে। ওই তরুণীকে পালবাজারে নিজের মেসে নিয়ে যায় শুভদীপ। অভিযোগ, তারপর তাকে সেখানে ধর্ষণ করে সে। এরপর নিজেই গিয়ে গড়ফা থানায় অভিযোগ দায়ের করেন ওই তরুণ। রাতের দিকে পুলিশ শুভদীপকে গ্রেফতার করে।

প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, তদন্তে পুলিশ জানতে পেরেছে, শুভদীপের একমাত্র নেশাই ছিল ফেসবুকে সুন্দরী তরুণীদের সঙ্গে আলাপ জমানো। বেছে বেছে যাদবপুর, সন্তোষপুর, গড়ফা-সহ দক্ষিণ শহরতলির কলেজ ছাত্রীদের নিজের প্রেমের ফাঁদে ফেলত শুভদীপ।  তারপর তাদের নিজের মেসে নিয়ে এসে শারীরিক সর্ম্পক করতে বাধ্য করত সে। সেইসময়ের ছবি ও ভিডিও মোবাইলে গোপনে তুলে রাখত সে।

সংবাদ প্রতিদিন বলছে, পুলিশ তার মোবাইল এবং কম্পিউটার থেকে প্রচুর আপত্তিকর ছবি এবং ভিডিও ফুটেজ পেয়েছে। পরে যাতে না ফাঁসাতে পারে তাই এই ছবি ও ভিডিও দিয়ে তরুণীদের ব্ল্যাকমেল করত সে।  আগে যাদবপুরের মেসে থাকত। তারপর গড়ফার পালবাজারে। পুলিশ প্রচুর সিমকার্ডও উদ্ধার করেছে ঘটনাস্থল থেকে।

Comments
Loading...