মানবতাবিরোধী অপরাধসহ ৭ অপরাধে অভিযুক্ত জামায়াত

0 ২৫

Jamayatঢাকা: একাত্তরে মুক্তিযুদ্ধকালীন মানবতাবিরোধী অপরাধী হিসেবে এবার জামায়াতে ইসলামীকে অভিযুক্ত করেছে আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনালের তদন্ত সংস্থা। জামায়াতে ইসলামী ৭ ধরনের অপরাধের সাথে জড়িত ছিল।

 ব্রিফিংয়ের পর প্রতিবেদনটি প্রসিকিউশনের কাছে জমা দেয়া হবে। বেলা ১১টায় দন্ত সংস্থার প্রধান সমন্বয়ক (আইজিপি) আবদুল হান্নান খান এ তথ্য জানিয়েছেন ।

হান্নান খান জানান, ১৯৭১ সালে বাংলাদেশের স্বাধীনতা সংগ্রামে পাকিস্তানি বাহিনী দীর্ঘ ৯ মাস এ দেশের মানুষের উপর নারকীয় হত্যাযজ্ঞ চালায়। আর পাক বাহিনীকে এই হত্যাযজ্ঞে সহযোগিতা করে জামায়াতে ইসলামী। একাত্তরে জামায়াতের অবস্থান সম্পর্কে তদন্তে এমন তথ্য পাওয়া গেছে।

প্রতিবেদনে ১৯৭১ সালের ২৫ মার্চ থেকে ১৬ ডিসেম্বর পর্যন্ত সক্রিয় জামায়াতের সকল নেতাকে অযিুক্ত করা হয়। এছাড়া মানবতাবিরোধী সংগঠন হিসেবে জামায়াতে ইসলাম এবং এর ‘মুপপত্র’ দৈনিক সংগ্রাম নিষিদ্ধ করার সুপারিশ করা হয় প্রতিবেদনে।  ৭০ জন সাক্ষীর সাক্ষ্যের ভিত্তিতে ৩৭৩ পৃষ্ঠার এ প্রতিবেদন তৈরি করা হয়েছে।

হাইকোর্টের রায়ে নিবন্ধন বাতিল হওয়া ‘মওদুদীবাদের সমর্থক’ সংগঠনটির বিরুদ্ধে স্বাধীনতাযুদ্ধে মানবতাবিরোধী অপরাধের বিভিন্ন অভিযোগ তদন্ত করে তদন্ত সংস্থা।

জামায়াতের বিরুদ্ধে একাত্তরে বিভিন্ন অপরাধ সংঘটনের পরিকল্পনা ও ষড়যন্ত্র, হত্যা, গণহত্যা, কমন রেসপনসসেবিলিটিসহ মানবতাবিরোধী বিভিন্ন অপরাধের অভিযোগ পাওয়া গেছে তদন্তে।

গত বছরের ১ আগস্ট হাইকোর্টের তিন বিচারপতির বেঞ্চ জামায়াতের নিবন্ধন অবৈধ ঘোষণা করে রায় দেন। এ রায়ের পর ৭ নভেম্বর নির্বাচন কমিশন জামায়াতে ইসলামির নিবন্ধন বাতিল করে দলটিকে নির্বাচনে অযোগ্য ঘোষণা করে।

২০০৮ সালের ৪ নভেম্বর জামায়াতকে অস্থায়ী নিবন্ধন দেয় নির্বাচন কমিশন। এই নিবন্ধনেরে বিরুদ্ধে ২০০৯ সালে হাইকোর্টে রিট আবেদন করেন তরিকত ফেডারেশনের তৎকালীন মহাসচিব রেজাউল হক চাঁদপুরীসহ ২৫ জন। ওই রিটের ওপর জামায়াতের নিবন্ধন অবৈধ ঘোষণা করে  রায় দেন হাইকোর্ট।

Comments
Loading...