আ’লীগের মহানগর কমিটি কয়টি হতে পারে!

0 ২০

al_sm_332646081ঢাকা : ঢাকা মহানগর আওয়ামী লীগের কমিটি দুইটি হবে না একটি কমিটিই থাকবে সে ব্যাপারে এখন চ‍ূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নেননি দলের নীতিনির্ধারকরা। আর এ কারণেই নতুন কমিটি হতে দেরি হয়েছে বলে আওয়ামী লীগের একাধিক সূত্র থেকে জানা গেছে।

যদিও দলের নেতারা বলছেন দ্রুতই ঢাকা মহানগর আওয়ামী লীগের নতুন কমিটি ঘোষণা করা হতে পারে। ঢাকা মহানগর উত্তর ও ঢাকা মহানগর দক্ষিণ এই দুইভাগে বিভক্ত হবে নগর আওয়ামী লীগ। তবে কবে নাগাদ এই কমিটি ঘোষণা করা হবে সে ব্যাপারে নির্দিষ্ট করে কেউ কিছু বলতে পারছে না।

এদিকে ঢাকা মহানগর আওয়ামী লীগের একটি কমিটি রাখা হবে, না মহানগরকে দুই ভাগে বিভক্ত করে দুইটি কমিটি দেয়া হবে এনিয়ে দলে মধ্যে বিভিন্ন ধরনের গুঞ্জন রয়েছে। আওয়ামী লীগের কেউ কেউ মনে করেন, ঢাকা মহানগর আওয়ামী লীগকে দুই ভাগে ভাগ করা হলে সংগঠন দূর্বল হয়ে যেতে পারে । এর ফলে রাজনৈতিকভাবে দল ক্ষতিগ্রস্থ হওয়ার আশঙ্কা রয়েছে।

দেশের রাজনীতির প্রাণ কেন্দ্র ঢাকা মহানগর। জাতীয় রাজনীতির গতি প্রকৃতি সারা দেশে প্রভাবিত ও নিয়ন্ত্রিত হয় ঢাকা মহানগরের তৎপরতার উপর ভিত্তি করে। দলের যে কোনো গুরুত্বপূর্ণ সিদ্ধান্ত ও কৌশল বাস্তবায়নে মূল ভূমিকা পালন করে দলের ঢাকা মহানগর ইউনিট। সারা দেশের সংগঠন তাকিয়ে থাকে ঢাকা মহানগরের দিকে। এই প্রেক্ষাপটে ঢাকা মহানগরের রাজনীতি একটি কমিটি থেকে পরিচালিত হওয়া দরকার বলে দলের ওই নেতারা মনে করেন।

২০১১ সালে ঢাকা সিটি করপোরেশনকে উত্তর ও দক্ষিণ এই দুই ভাগে বিভক্ত করার পর ঢাকা মহানগর আওয়ামী লীগকে দুই ভাগে ভাগ করার বিষয়টি আলোচনায় আসে। তবে দুই ভাগে ভাগ হবে, না কি একটি কমিটিই থাকবে সে ব্যাপারে এখনও চুড়ান্ত সিদ্ধান্ত হয়নি বলে আওয়ামী লীগের নীতিনির্ধারনি পর্যায়ের একাধিক নেতা জানিয়েছেন। যদিও ঢাকা মহানগর আওয়ামী লীগ উত্তর ও ঢাকা মহানগর আওয়ামী লীগ দক্ষিণ এই দুই ভাগে ভাগ করে দুইটি কমিটি দেয়া হচ্ছে বলেই দলের মধ্যে জোর আলোচনা রয়েছে।

আওয়ামী লীগ সভাপতি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাও কার্যনির্বাহি সংসদের এক সভায় ঢাকা মহানগর আওয়ামী লীগের দুইটি কমিটি দেয়ার পক্ষে মত দিয়েছিলেন। এর পর বেশ কিছু সময় পার হলেও নতুন কমিটি ঘোষণা হয়নি।

২০১২ সালের ২৭ ডিসেম্বর ঢাকা মহানগর আওয়ামী লীগের সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়। সম্মেলন পর নতুন কমিটি ঘোষণা করা হয়নি। ওই দিন রাতে আওয়ামী লীগের কার্যনির্বাহি সংসদের সভায় পুরোনো কমিটিকেই কার্যক্রম চালিয়ে যাওয়ার দায়িত্ব দেয়া হয়। ওই সভায় সিদ্ধান্ত নেয়া হয়, যত দিন নতুন কমিটি ঘোষণা করা না হবে ততদিন পুরোনো কমিটি বহাল থেকে কাজ চালিয়ে যাবে।

আওয়ামী লীগের একাধিক সুত্র জানায়, ঢাকা মহানগরের নতুন কমিটি দুইটি হবে, না একটি হবে এ ব্যাপারে দলের নীতিনির্ধারকরা বিভিন্ন দিক বিবেচনা করছেন। বিগত সময় আওয়ামী লীগ বিরোধী দলে যখন ছিলো তখন আন্দোলনের প্রাণ কেন্দ্র হিসেবে রাজধানীতে ঢাকা মহানগর আওয়ামী লীগ গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করেছে। আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় আসার পর গত ৫ বছরে বিরোধী দলের আন্দোলন মোকাবেলায় ঢাকা মহানগর আওয়ামী লীগের ভূমিকাও ছিলো গুরুত্বপূর্ণ।

মহানগর আওয়ামী লীগের শক্ত অবস্থানের কারণে বিরোধী দল সুবিধা করতে পারেনি। অবিভক্ত সাংগ‍ঠনিক শক্তির ফলেই এটা সম্ভব হয়েছে বলে অনেকেই মনে করেন। দুই ভাগ ভাগ করা হলে সংগঠন দূর্বল হবে কিনা সে বিষয়টিকেও গুরুত্ব দেয়া হচ্ছে। তবে একটি কমিটি রাখার ব্যাপারে কেউ প্রকাশ্যে কিছু বলতে চান না।

ঢাকা মহানগর আওয়ামী লীগের কমিটি কবে দেয়া হবে জানতে চাওয়া হলে আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মাহাবুব-উল-আলম হানিফ বাংলানিউজকে বলেন, দ্রুত কমিটি দেয়া হবে। তবে কবে দেয়া হবে সেটা নির্দিষ্ট করে বলতে পারব না। ঢাকা মহানগর কমিটি একটি, না দুইটি হবে জানতে চাওয়া হলে তিনি বলেন, দুইটি কমিটি করা হবে।

এদিকে ঢাকা মহানগর আওয়ামী লীগের মধ্যেও একটি কমিটির পক্ষে অনেকেরই মত রয়েছে। আবার কেউ কেউ চান দুইটি কমিটি। মহানগরের সিনিয়র নেতারা একটি কমিটি বহাল রাখার পক্ষে। কিš‘ জুনিয়র নেতাদের কেউ কেউ যারা কমিটিতে গুরুত্বপূর্ণ পদে বা নেতৃত্বে যেতে চান বিশেষ করে সভাপতি-সাধারণ সম্পাদক যারা হতে চান তারা দুইটি কমিটি চান।

আবার দুইটি কমিটি হলে বর্তমানে মহানগর কমিটিতে যারা সিনিয়র আছেন বা গুরুত্বপূর্ণ পদে রয়েছেন মহানগরের একটি অংশের কমিটিতে থাকতে চাইবেন না। কারণ হিসেবে নাম প্রকাশ না করার শর্তে ঢাকা মহানগরের এক সিনিয়র নেতা বাংলানিউজকে বলেন, যিনি বর্তমানে সভাপতি, সাধারণ সম্পাদক বা সহসভাপতি পদে আছেন স্বাভাবিকভাবেই দুই ভাগে ভাগ হলে বা দুইটি কমিটি হলে বা একই পদে যাওয়ার জন্য প্রেসটিজ ইস্যু হয়ে যাবে। এ কারণে সিনিয়রদের কেউ কেউ বিভক্তি চান না বলে তিনি মন্তব্য করেন।

আবার জুনিয়র নেতাদের কেউ কেউ মনে করছেন দুইটি কমিট হলে জুনিয়রদের গুরুত্বপূর্ণ পদে বা মুল নেতৃত্বে আসার সুযোগ তৈরি হবে। এ কারণেই জুনিয়র নেতাদের অনেকই চান দুইটি কমিটি।

এই বিষয়গুলো নিয়ে ঢাকা মহানগর আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীদের মধ্যে নানা ধরনের গুঞ্জন রয়েছে। একটি গুঞ্জন আছে, শক্তিশালী সাংগঠনিক ভিত্তির জন্য একটি কমিটিই রাকা হতে পারে। এই নতুন কমিটিতে বর্তমান সাধারণ সম্পাদক মোফাজ্জল হোসেন চৌধুরী মায়াকে সভাপতি এবং বর্তমান যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক এ্যাডভোকেট কামরুল ইসলামকে সাধারণ সম্পাদক করা হতে পারে। আবার মহানগরের কারো কারো ধারণা বর্তমান কমিটিই আরও কিছু দিন বহাল থাকতে পারে।

নতুন কমিটি কবে দেয়া হতে পারে জনাতে চাওয়া হলে এ্যাডভোকেট কামরুল ইসলাম বাংলানিউজকে বলেন, আমরা এ ব্যাপারে কিছু জানি না। কমিটি কবে হবে সেটা নেত্রীই  (শেখ হাসিনা) জানেন।

Comments
Loading...