গোলাম আযমের জন্য মহানগর জামায়াতের দোয়া মাহফিল

0

88610_1ঢাকা: জামায়াতে ইসলামীর সাবেক আমির অধ্যাপক গোলাম আযমের সুস্থতা কামনা এবং কারামুক্তির চেয়ে ঢাকা মহানগর জামায়াতে ইসলামী দোয়া মাহফিল করেছে।

মঙ্গলবারের এই দোয়া মাহফিলে ঢাকা মহানগর জামায়াতের সেক্রেটারি নূরুল ইসলাম বুলবুল উপস্থিত ছিলেন। তিনি বলেন, পঁচানব্বই বছর বয়সী অধ্যাপক গোলাম আযমকে সরকার রাজনৈতিক প্রতিহিংসা চরিতার্থ করতেই সম্পূর্ণ অন্যায়ভাবে গ্রেপ্তার করে যুদ্ধাপরাধের নামে মিথ্যা অভিযোগে প্রসহনের বিচার করেছে।

বুলবুল দাবি করেন, ‘তার বিরুদ্ধে যেসব মিথ্যা অভিযোগ আনা হয়েছে সেগুলো ইতিহাসের ন্যাক্কারজন মিথ্যাচার ছাড়া আর কিছুই নয়, নিরপেক্ষ বিচার করলে তাকে এক ঘণ্টার জন্যও কোনো সাজা দেয়ার কোনো সুযোগ ছিল না।’

তিনি অভিযোগ করেন, ‘জুলুমবাজ সরকার তাকে কারাগারের অন্ধকার প্রকোষ্টে আটকে রেখে শাররীক ও মানসিক নির্যাতনের মাধ্যমে তিলে তিলে মৃত্যের দিকে ঠেলে দিয়েছে। বর্তমানে তিনি পিজি হাসপাতালের সিসিইউতে সংকটাপন্ন অবস্থায় চিকিৎসাধীন আছেন।’

ঢাকা মহানগর জামায়াতের এই নেতা বলেন, অনতিবিলম্বে অধ্যাপক গোলাম আযমকে মুক্তি দিয়ে তার পরিবারের নিকট ফিরিয়ে দিতে হবে এবং উন্নত চিকিৎসার ব্যবস্থা করতে হবে। অন্যথায় যে কোনো পরিস্থিতির জন্য সরকারকেই দায়বার বহন করতে হবে।

দোয়া মাহফিলে অন্যদের মধ্যে উপস্থিতি ছিলেন, মহানগরী কর্মপরিষদ সদস্য ও শাহবাগ থানার আমির অ্যাডভোকেট হেলালউদ্দিন ও পল্টন থানা আমির অধ্যাপক মোকাররম হোসেন খান, জামায়াত নেতা ওমর ফারুক, আবু ইউসুফ, আমীরুল ইসলাম, অ্যাডভোকেট আবুল কাশেম, অ্যাডভোকেট দেলোয়ার হোসেন, প্রকৌশলী মাহমুদুর রহমান প্রমুখ।

এছাড়া কোতোয়ালী থানা, মিরপুর, মিরপুর পশ্চিম, রূপনগর থানা, খিলগাঁও থানা, লালবাগ থানা, শেরে-বাংলানগর থানা, চকবাজার থানা, কামরাঙ্গীরচর থানা, ভাটারা থানা, বংশাল থানা ও দারুসসালাম থানা জামায়াতও দোয়া মাহফিলের আয়োজন করে।

প্রসঙ্গত, হঠাৎ ব্লাড প্রেসার বেড়ে গেলে মানবতাবিরোধী অপরাধের মামলায় ৯০ বছরের কারাদণ্ডপ্রাপ্ত অধ্যাপক গোলাম আযমকে মঙ্গলবার সকাল সাড়ে ৮টার দিকে রাজধানীর বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি করা হয়। তাকে করোনারি কেয়ার ইউনিট (সিসিইউ)-তে রাখা হয়েছে।

Comments
Loading...