সকাল সাড়ে ১০টা পর্যন্ত ফাঁসির রায় স্থগিত

0 ১৩

Kader_Fashi_Monchঢাকা: জামায়াতের সহকারী সেক্রেটারী জেনারেল আব্দুল কাদের মোল্লার মৃত্যুদন্ডের রায় স্থগিত করেছে চেম্বার আদালত।  আগামীকাল বুধবার সকাল সাড়ে ১০টা পর্যন্ত কাদের মোল্লার ফাসির রায়ের কার্যকারিতা স্থগিত করা হয়েছে বলে জানিয়েছেন চেম্বার বিচারপতি সৈয়দ মাহমুদ হোসেন।

রাতে সাংবাদিকদের এ কথা জানান কাদের মোল্লার আইনজীবি এ্যাডভোকেট তাজুল ইসলাম।

মঙ্গলবার রাত সাড়ে ১০টার দিকে চেম্বার বিচরিপতি সৈয়দ মাহমুদ হোসেন এই স্থগিতাদেশ দেন। বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন সংশ্লিষ্ট আদালতের বেঞ্চ অফিসার ইসলাম উদ্দিন।
মঙ্গলবার রাত পৌনে ৮টার দিকে জামায়াতের আইনজীবীরা আপিল বিভাগের চেম্বার বিচারপতি সৈয়দ মাহমুদ হোসেনের বাসায় যান।জামায়াতের সহকারী সেক্রেটারি জেনারেল বিশিষ্ট আইনজীবী ব্যারিস্টার আব্দুর রাজ্জাকের নেতৃত্বে আইনজীবীদের একটি দল ওই বিচারপতির কাছে যান।
এ সময় বিচারপতি তাদের আবেদনপত্রের একটি অনুলিপি রাষ্ট্রপক্ষের আইনজীবীদের পক্ষ হিসেবে অ্যাটর্নি জেনারেল মাহবুবে আলমের কাছে দিতে বলেন।
বিচারপতির সঙ্গে সাক্ষাত শেষে সাংবাদিকদের আব্দুল কাদের মোল্লার পক্ষে অ্যাডভোকেট খন্দকার মাহবুব হোসেন বলেন, “বিচারপতি আবেদনের এক কপি অ্যাটর্নি জেনারেলকে দিতে বলেছেন। আমরা তাকে ফোন দিয়েছি, ম্যাসেজ করেছি। কিন্তু তিনি ফোন ধরেননি, মেসেজের উত্তরও দেননি।”
জজ কোয়ার্টার থেকে বের হয়ে রাজধানীর মিনিস্ট্রি অ্যাপার্টমেন্টে অবস্থিত অ্যাটর্নি জেনারেল মাহবুবে আলমের বাসায় কাদের মোল্লার আইনজীবীরা যান। সেখানে তারা অ্যাটর্নি জেনারেলের কাছে পৌঁছতে ব্যর্থ হন। ফিরে আসেন বিচারপতির বাসায়।এরপর রাত সাড়ে ১০টার দিকে চেম্বার বিচারপতি সৈয়দ মাহমুদ হোসেন রায় কার‌্যকর বুধবার সকাল সাড়ে ১০টা পর‌্যন্ত স্থগিত করেন।
৫ ডিসেম্বর কাদের মোল্লার ফাঁসির দণ্ডাদেশের পূর্ণাঙ্গ রায় প্রকাশিত হয়। প্রধান বিচারপতি মো. মোজাম্মেল হোসেনের নেতৃত্বে আপিল বিভাগের পাঁচ বিচারপতির বেঞ্চ এ রায় দেন। বেঞ্চের অন্যরা হলেন- বিচারপতি সুরেন্দ্র কুমার সিনহা (এস কে সিনহা), বিচারপতি সৈয়দ মাহমুদ হোসেন ও বিচারপতি এ এইচ এম শামসুদ্দিন চৌধুরী। এর মধ্যে তিন বিচারপতি রায় লিখেছেন। প্রধান বিচারপতি মো. মোজাম্মেল হোসেন সহমত পোষণ করেছেন বিচারপতি এস কে সিনহার লেখা রায়ের সঙ্গে। বিচারপতি সৈয়দ মাহমুদ হোসেন রায় লেখেননি, তবে বিচারপতি এস কে সিনহার রায়ের সঙ্গে সহমত পোষণ করেছেন। ভিন্নমত পোষণ করে বিচারপতি মো. আব্দুল ওয়াহ্হাব মিঞা যাবজ্জীবন কারাদণ্ড বহালের রায় দেন। আর বিচারপতি শামসুদ্দিন চৌধুরী রায় লিখেছেন।

Comments
Loading...