প্রথম আলোর সাংবাদিকসহ পরিবারের ৪ জনকে মারপিট

0 ১৯

Rajbariপ্রথম আলোর রাজবাড়ী প্রতিনিধি এজাজ আহম্মেদসহ তার পরিবারের চার জন সদস্যকে আজ শুক্রবার সকালে দুর্বৃত্তরা মারপিট করেছে। আহত সাংবাদিক ও তার ভাগিনাকে রাজবাড়ী হাসপাতালে নিয়ে প্রাথমিক চিকিৎসা সেবা প্রদান করা হয়েছে। এ ঘটনায় পুলিশ একজনকে আটক করেছে। তবে শুক্রবার সন্ধ্যা পর্যন্ত ওই ঘটনায় রাজবাড়ী থানায় কোন মামলা দায়ের হয়নি।

সাংবাদিক এজাজ আহম্মেদ জানান, রাজবাড়ী জেলা সদরের মিজানপুর ইউনিয়নের গঙ্গাপ্রসাদপুর এলাকায় থাকা এসএমবি ইটভাটায় বিগত বছর লাকড়ি পোড়ানো এবং ওই ভাটায় যাতায়াত করা ট্রাকের জন্য সড়কের ক্ষতির একাধিক রিপোর্ট স্থানীয় পত্রিকাসহ বিভিন্ন টেলিভিশনে প্রচার করা হয়। তবে ভাটার মালিকদের ধারণা ওই এলাকায় বসবাস করায় আমি সাংবাদিকদের দিয়ে এ রিপোর্ট প্রকাশ করিয়েছি। যে কারণে ভাটার মালিক ও শ্রমিকরা আমার ও আমার পরিবারের সদস্যদের উপর ক্ষিপ্ত হয়। আজ শুক্রবার সকাল ১১টার দিকে ভাটার শ্রমিকরা আমার ভাগিনা ভাই শামিম আহম্মেদকে মারপিট করে মাথা ফাটিয়ে দেয়। এ ঘটনার কিছু সময় পর তারা সংঘবদ্ধ হয়ে আমাদের বাড়িতে আসে এবং আমাকে, আমার মামাতো বোন বিউটিকে এবং মামাতো ভাই রবিউলকে বেধড়ক মারপিট করে। মারপিটের কারণে আমার বাম হাত ভেঙ্গে গেছে। তিনি আরো বলেন, ভাটার মালিক মেহেদী নাজিরুল ইসলাম নাদেরের নেতৃত্বে এ হামলার ঘটনা ঘটানো হয়।

ভাটা মালিক মেহেদী নাজিরুল ইসলাম নাদের জানান, ৮ দিন পূর্বে সাংবাদিক এজাজের ভাগিনা শামিম ইটভাটায় আসা একটি ট্রাকের চালককে গালাগাল করে। ওই ঘটনার পর আজ সকালে ট্রাকচালকরা এজাজের ভাগিনা শামিমকে মারপিট করে। ভাটার অপর মালিক মঞ্জুর ঘটনাস্থলে গেলে শামিমরা তাকে মারপিট করে। এ খবর পেয়ে ভাটার শ্রমিকরা এজাজের বাড়িতে যায় এবং সেখানে মারপিটের ঘটনা ঘটে। সে সময় হয়তো এজাজ আহত হতে পারে।

রাজবাড়ী থানার ওসি আব্দুল খালেক জানান, মারামারির খবর পেয়ে থানা পুলিশের সদস্যরা ঘটনাস্থলে গিয়ে পরিস্থিতি শান্ত করে। এ সময় সাইফুল নামে এক ভাটা শ্রমিককে আটক করা হয়। তবে শুক্রবার সন্ধ্যা পর্যন্ত ওই ঘটনায় থানায় কোনো মামলা দায়ের হয়নি।

Comments
Loading...