রৌমারীতে বখাটেদের কারনে দুই বোনের স্কুলে যাওয়া বন্ধ!

0 ১৩
image_30185_0রৌমারী (কুড়িগ্রাম) প্রতিনিধি
স্কুলে যাতায়াতের সময় পথ আটকে বখাটেদের উত্যক্ত ও অত্যাচারে অতিষ্ঠ দুইবোনের লেখাপড়া হুমকির মুখে পড়েছে। এতেও ক্ষ্যান্ত না হয়ে বখাটেরা ওই দুই বোন সর্ম্পকে নোংড়া সব কথাবার্তা সাজিয়ে গুজিয়ে তা রেকর্টিং করে এবং সবার মোবাইলফোনে, ইন্টারনেটে ও ফেসবুকে প্রচার করে। এর ফলে লজ্জায় ওই দুইবোন স্কুলে যাওয়া ছেড়ে দিয়েছে। গত ১২ মার্চ তারিখ থেকে ১৫দিন থেকে তারা স্কুলে যাতায়াত বন্ধ করে দিয়েছে বলে অভিযোগে জানা গেছে। এ বিষয়ে নিরুপায় হয়ে মেয়ে দু’টির বাবা গতকাল বৃহষ্পতিবার রৌমারী উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা বরাবর লিখিত অভিযোগ দায়ের করেছে।
কুড়িগ্রামের রৌমারী উপজেলার কোমরভাঙ্গি উচ্চ বিদ্যালয়ে ৮ম ও ১০ম শ্রেণীতে লেখাপড়া করে ওই দুইবোন। মেয়ে দু’টির বাড়ি উপজেলার ধনারচর গ্রামে। তাদের পিতা (আব্দুস ছাত্তার) সামান্য একজন চায়ের দোকান। সায়েদাবাদ বাজারে ওই চায়ের দোকানে আয়রোজগারে ৮ সদস্যের পরিবারের খরচ চলে।

অভিযোগে জানা গেছে, ধনারচর গ্রামের রাজু শেখের পুত্র লিটন (২২) ও তার কয়েক বন্ধু দীর্ঘদিন থেকে স্কুলে যাতায়াতের সময় নানাভাবে উত্যক্ত করে। এনিয়ে ওই বখাটে লিটনের কন্ঠে ওই দুইবোন ও তারদের বাবার নাম উল্লেখ করে নোংড়াসব কথাবার্তা রেকট করে। পরে তা সবার মোবাইল ফোনে এবং ইন্টারনেটের মাধ্যমে ছড়িয়ে দেওয়া হয়। ফলে ওই নোংড়া রেকর্টিং এখন মানুষের মোবাইল ফোনে।

মেয়েদু’টির পিতা বলেন, ‘আমি গরীব মানুষ। চা পানবিড়ি বেইচা খাই। গেরামের ওই লিটন নামের ছেলেটির সঙ্গে আরো ৩/৪ জন আমার মাইয়া দুইডাক নিয়া আজেবাজে কতা কয়। স্কুলে যাওয়ার সময় পথ আটকাইয়া ধরে। এরজন্য মাইয়া আমার স্কুলে যাওয়া ছেড়ে দিয়েছে। বাইত্তে খালি কান্দে। মরবার চায়।’

স্কুলের প্রধান শিক্ষক মিজানুর রহমানের কাছে জানতে চাইলে তিনি বলেন, ‘এ ব্যাপারে তো আমি কিছু জানি না। আমাকে তো কেউ জানায়নি।’ এক প্রশ্নের জবাবে মেয়েদুইটা স্কুলে অনুপস্থিত থাকার বিষয়ে বলতে পারছি না।

এ বিষয়ে রৌমারী উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা আব্দুল হান্নান জানান, অভিযোগ পাওয়ার পর তা ব্যবস্থা নেওয়ার জন্য থানাপুলিশকে নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।’ রৌমারী থানার ওসি মোখলেছুর রহমান অভিযোগ পাওয়ার কথা স্বীকার করে বলেন, ‘এ বিষয়ে খোঁজ নেওয়া হচ্ছে।

Comments
Loading...